kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

মসজিদে নববীতে ৩০ বছর ধরে ক্যালিগ্রাফি করেন তিনি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ জুন, ২০১৯ ২১:৫২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মসজিদে নববীতে ৩০ বছর ধরে ক্যালিগ্রাফি করেন তিনি

মসজিদে নববীতে গত ৩০ বছর ধরে ক্যালিগ্রাফি করেন ওস্তাদ শফিক-উজ-জামান। মসজিদে নববীতে কাজ করার সুবাদে সম্মান, খ্যাতি আর অসংখ্য মানুষের ভালোবাসা পেয়েছেন তিনি। সারাবিশ্বে অসংখ্য ছাত্র থাকার কারণে তার নামের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ওস্তাদ।

মসজিদে নববীতে থাকা বেশিরভাগ ক্যালিগ্রাফিই শফিক-উজ-জামানের করা। পাকিস্তানি এই নাগরিক গত ৪০ বছর ধরে সৌদি আরবে বসবাস করছেন। শুরুর দিকে রিয়াদের একটি দোকানে ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবেও কাজ করেছেন।

তবে তার ভাগ্য খুলে যায় হারাম ক্যালিগ্রাফি প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার পর। অবশ্য ছোট্ট অবস্থায়ও অনেক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে পুরস্কার জিতেছেন শফিক। কিন্তু হারামের প্রতিযোগিতায় তিনি প্রথম হয়ে যান।

এবার শুরু হয় শফিকের নতুন অধ্যায়ের পথচলা। তাকে সৌদি আরবের নাগরিকরা সেখানকারই বাসিন্দা মনে করতো। তবে তারা যখন জানতে পারতো যে শফিক পাকিস্তানের বাসিন্দা। তখন তারা চমকে যায়।

শফিককে আরবের নাগরিক ভাবার অবশ্য কারণও আছে। ছোটবেলা থেকেই সেখানে বসবাসের কারণে স্পষ্টভাবে আরবি বলতে ও সুন্দর করে লিখতে পারেন তিনি।

মসজিদে নববীর ১৭৭টি পিলারে শফিকের ক্যালিগ্রাফি রয়েছে। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর মাজারের পাশে জীবনের বেশিরভাগ সময় কাজের মধ্য দিয়ে কাটিয়ে দিতে পেরে অত্যন্ত খুশি শফিক। 

মসজিদে নববীতে কাজ করার সুবাদে পাকিস্তানে অত্যন্ত সম্মানিত ব্যক্তি শফিক। জানা গেছে, মসজিদে নববীর ইমাম শেখ মুহাম্মদ আল লুহাইদানও পাকিস্তানি নাগরিক। পাকিস্তানে তাদের দু'জনকে অন্যরকম সম্মানের চোখে দেখা হয়।

শফিক আসলে সারাজীবন চেয়েছেন ক্যালিগ্রাফি করে কাটাতে। তিনি ক্যালিগ্রাফি কতটা মন দিয়ে করেন এবং তাতে সন্তুষ্ট থাকেন, সেটা দেখতে পারেন এই ভিডিওতে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা