kalerkantho

রবিবার । ২ অক্টোবর ২০২২ । ১৭ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে হুন্ডি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এখনই

নিরঞ্জন রায়

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৯ মিনিটে



মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে হুন্ডি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে এখনই

আমাদের দেশে যেভাবে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা, বিশেষ করে বিকাশ, নগদ সস্তা জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে এবং যেভাবে ব্যাংকের এই উপসেবা মূল ব্যাংকিংসেবাকে ছাড়িয়ে গেছে, তাতে এর ঝুঁকির মাত্রাও চরমে পৌঁছেছে। আর মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ঝুঁকির বিষয়ে সতর্ক করে এই সেবা খাতকে কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনার কথা একাধিকবার বলা হয়েছে। কিভাবে এটা সম্ভব, সে বিষয়েও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংক বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টিকে তেমন কোনো গুরুত্ব দিয়েছে বলে মনে হয় না।

বিজ্ঞাপন

এখন পুলিশের সিআইডি (ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট) জানতে পেরেছে যে দেশের মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে ঘটছে ভয়ংকর রকমের মানি লন্ডারিংয়ের ঘটনা। সিআইডি এসংক্তান্ত অনেক তথ্য-প্রমাণও হাতে পেয়েছে এবং প্রাথমিকভাবে এর সঙ্গে জড়িত ১৬ জনকে আটকও করেছে। সিআইডির দেওয়া তথ্য মতে, গ্রেপ্তারকৃত সবাই দেশের একটি জনপ্রিয় মোবাইল বাংকিংসেবা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত। সিআইডি আরো উল্লেখ করেছে যে বিগত এক বছরে এই সংঘবদ্ধ চক্র দেশের মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে প্রায় ৭৫ হাজার কোটি টাকা বা ৭.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিদেশে পাচার করেছে অর্থাৎ দেশে নিয়ে আসতে দেয়নি। একেবারে আঁতকে ওঠার মতো ঘটনা। দেশের ডলারের দুর্দিনে এত বিশাল অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা দেশে না আসায় দেশকে কী ভয়ংকর ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়েছে, ভাবা যায়!

আজ যদি মোবাইল ব্যাংকিং দেশের মূলধারার ব্যাংকিং খাতের মতো কঠোর নিয়ন্ত্রণের অধীনে চলত এবং সেটা করতে গিয়ে তারা যদি যথাযথ কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করে তাদের মোবাইল ব্যাংকিংসেবা প্রদান করত, তাহলে এত বিপুল পরিমাণ মানি লন্ডারিং করে ডলার দেশে না এনে পাচার করার উদ্দেশ্যে বিদেশে রেখে দিতে পারত না। আর এই পরিমাণ অর্থ তখন বৈধ পথে দেশে আসত এবং দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কখনো ৪৫ বিলিয়ন ডলারের নিচে নামত না। শুধু তা-ই নয়, মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে এ রকম অবৈধ ডলার পাচারের প্রকৃত অবস্থা যে কোন পর্যায়ে আছে তা হয়তো কল্পনা করাও কঠিন। কেননা সিআইডি মাত্র ১৬ জনকে আটক করেছে। অথচ তাদের কাছে সুনির্দিষ্ট তথ্য আছে যে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে অবৈধভাবে ডলার পাচার বা হুন্ডির সঙ্গে জড়িত আছে এ রকম এজেন্টের সংখ্যা পাঁচ হাজারের বেশি হবে।

দেশের মোবাইল ব্যাংকিংসেবা অপব্যবহার করে কিভাবে এই বিশাল অঙ্কের হুন্ডি বা মানি লন্ডারিংয়ের মতো ঘটনা সংঘটিত হয়েছে তা ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করেও খুব একটা সফল হতে পারিনি। কারণ সংবাদমাধ্যমে সেভাবে বিস্তারিত তথ্য আসেনি। সিআইডি যে সামান্য কিছু তথ্য প্রকাশ করেছে তার ওপর ভিত্তি করে স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ফলে ঘটনার বিস্তারিত কিছু জানার সুযোগ খুব একটা নেই। শুধু উল্লেখ করা হয়েছে যে তিনটি গ্রুপ এই আর্থিক অনিয়মের সঙ্গে জড়িত এবং এরা সবাই কোনো একটি মোবাইল ব্যাংকিংসেবা প্রদানকারী কম্পানির সঙ্গে জড়িত। খুবই স্বাভাবিক। মোবাইল ব্যাংকিংসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত ব্যক্তিদের সরাসরি সহযোগিতা ছাড়া এ ধরনের হুন্ডি বা আন্তর্জাতিক মানি লন্ডারিং সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। সে রকম ব্যক্তিরাই বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ হয়ে এই অপকর্ম করে থাকে এবং সেই গ্রুপের সংখ্যা তিন কেন, তার চেয়ে অনেক বেশি হতে পারে। এই গ্রুপেরই হাতে গোনা কয়েকজন ধরা পড়েছে মাত্র।

এ ধরনের হুন্ডি বা আন্তর্জাতিক মানি লন্ডারিং ঘটনার সঙ্গে দুটি সরাসরি পক্ষ জড়িত থাকে, যাদের মধ্যে এক পক্ষ বিদেশ থেকে অর্থ পাঠায় এবং অন্য পক্ষ দেশ থেকে বিদেশে অর্থ পাচার করে। আর এই দ্বিতীয় পক্ষ অর্থাৎ যারা এই মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে বিদেশে অবৈধভাবে অর্থ পাচার করেছে, তাদের শনাক্ত করতে পারলেই প্রকৃত ঘটনা জানা সম্ভব হবে। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস, সিআইডি তদন্তের স্বার্থে ঘটনার অনেক তথ্য গোপন রাখলেও তারা খুব দ্রুতই দেশের অভ্যন্তরের অর্থপাচারকারীদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হবে।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে সিআইডি বা অন্য কোনো এজেন্সি হন্ডি বা মানি লন্ডারিংয়ের সঙ্গে জড়িত এ রকম কিছু ব্যক্তিকে আটক করে সাজা দিলেই যে দেশে এ ধরনের অপকর্ম বন্ধ হবে বা হ্রাস পাবে তেমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই। মোবাইল ব্যাংকিংসেবার নামে আর্থিক লেনদেন যেভাবে সহজ ও অবারিত করে দেওয়া হয়েছে তাতে এ ধরনের ঘটনা আগামী দিনে ক্রমান্বয়ে বাড়তেই থাকবে। শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করেই দেশের যেকোনো প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মোবাইল ব্যাংকিং কম্পানির হিসাব খুলে দিনে হাজার হাজার টাকার লেনদেন করা যায়।

এভাবে নিয়ন্ত্রণহীন আর্থিক লেনদেন উন্নত বিশ্বে, এমনকি অনেক উন্নয়নশীল দেশে কল্পনা করাও কঠিন। অথচ আমাদের দেশে এই ব্যবস্থা চলছে অবলীলায়। আর যা কিছু সস্তা ও নিয়ন্ত্রণহীন তা-ই সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। আর সস্তা জনপ্রিয় ব্যবস্থার মাধ্যমেই ঘটে সব অঘটন। দেশে হুন্ডি বা মানি লন্ডারিং বন্ধ করতে হলে এই সস্তা ও সহজ মোবাইল ব্যাংকিংসেবা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে সবার আগে। দেশে দ্রুত অগ্রসরমাণ এই মোবাইল ব্যাংকিংসেবা যদি সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা না হয়, তাহলে অদূর ভবিষ্যতে শুধু হুন্ডি, মানি লন্ডারিং এবং বিদেশে অর্থপাচারের মতো ঘটনা ছাড়াও আরো অনেক ভয়ংকর আর্থিক জালিয়াতি বা লেনদেন কেলেঙ্কারির মতো ঘটনা ঘটলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

প্রযুক্তি যেভাবে এগিয়ে চলেছে এবং মানুষও যেভাবে খুব সহজেই প্রযুক্তির ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে, তাতে অনলাইন ব্যাংকিং এখন যুগের চাহিদা। অথচ আমাদের দেশের ব্যাংকিং খাত তাদের প্রকৃত অনলাইন ব্যাংকিংসেবা সেভাবে অগ্রসর ও জনপ্রিয় করে তুলতে পারেনি। আজ ব্যাংকগুলো যদি তাদের গ্রাহকদের মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে সীমিত পরিসরে লেনদেন করার সুযোগ অবারিত করে দিতে পারত, তাহলে মানুষ তখন ব্যাংকের হিসাব থেকেই খুব সহজে মোবাইল ব্যাংকিং লেনদেন করতে পারত। ফলে বিকাশ বা নগদের মতো তৃতীয় কোনো কম্পানি প্রদত্ত মোবাইল ব্যাংকিংসেবা গ্রহণ করার প্রয়োজন হতো না। আর ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করতে পারলে গ্রাহকরাও যেমন নিরাপদ বোধ করতে পারেন, তেমনি হুন্ডি, মানি লন্ডারিং বা বিদেশে অর্থপাচারের মতো ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা খুব কম থাকে।

অনেক আলোচনা-সমালোচনা থাকা সত্ত্বেও ব্যাংকই এখনো মানুষের আর্থিক লেনদেনের জন্য সবচেয়ে বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান। কেননা ব্যাংকই একমাত্র প্রতিষ্ঠান, যা শুধু কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থেকে ব্যবসা করে। শুধু তা-ই নয়, সেই সঙ্গে তাদের দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেক আইন ও বিধি-বিধান মেনে চলতে হয়। অথচ দুর্ভাগ্য যে ডিজিটাল বাংলাদেশ জাতীয় স্লোগান হওয়া সত্ত্বেও আমাদের দেশের ব্যাংকিং খাত তাদের প্রকৃত অনলাইন ব্যাংকিং সুবিধা সেভাবে এগিয়ে নিতে পারেনি। আর এ কারণেই এই শূন্যস্থান খুব সহজে দখল করে নিয়েছে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা প্রদানকারী কম্পানি। শুধু তা-ই নয়, এসব মোবাইল ব্যাংকিং কম্পানি যেভাবে নিজেদের জনপ্রিয় করে তুলেছে, মানুষের আর্থিক লেনদেন সহজ করে দিয়েছে এবং এমনকি দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের লেনদেন নিষ্পত্তিতে যে ধরনের ভূমিকা রাখছে তাতে এই সেবা প্রদানকারী কম্পানি বন্ধ করার কথা কল্পনা করাও কঠিন এবং তা ঠিকও হবে না। এমনকি এসব কম্পানি হয়তো কঠোর নিয়ন্ত্রণ বা নজরদারির মধ্যে নিয়ে আসাও কষ্টকর হবে। এর পরও এসব কম্পানি যেহেতু আর্থিক সেবা প্রদানের সঙ্গে জড়িত, তাই তাদের সরাসরি নিয়ন্ত্রণের অধীনে আনতেই হবে এবং এর কোনো বিকল্প নেই।

প্রথমেই একটি বিষয় নিশ্চিত করতে হবে যে সরাসরি অর্থ স্থানান্তর বা লেনদেন করার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের অবশ্যই কোনো না কোনো ব্যাংক হিসাব তাঁদের মোবাইল ব্যাংকিং হিসাবের সঙ্গে লিংক থাকতে হবে। ব্যাংক হিসাব ব্যতিরেকে শুধু মোবাইল ব্যাংকিং হিসাব দিয়ে দ্রব্য বা সেবা ক্রয়ের মূল্য পরিশোধ বা বিল পরিশোধের মতো লেনদেন সম্পন্ন করা যেতে পারে; কিন্তু কোনো অবস্থায়ই সরাসরি অর্থ স্থানান্তরের মতো লেনদেন করতে পারবে না। মোটকথা মোবাইল ব্যাংকিংসেবা গ্রহণের জন্য দুই ধরনের হিসাব থাকতে পারে। এক ধরনের হিসাবে কোনো ব্যাংক হিসাবের বাধ্যবাধকতা থাকবে না। এসব গ্রাহক সীমিত পরিসরে সেবা, বিশেষ করে দ্রব্যসামগ্রী কেনা বা বিল পরিশোধের মতো লেনদেন করতে পারবেন মাত্র।

আরেক ধরনের হিসাব থাকবে, যাঁদের দেশের কোনো ব্যাংকে হিসাব চালু থাকবে এবং সেই হিসাব লিংক করা থাকতে হবে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা কম্পানির হিসাবের সঙ্গে। এ ধরনের গ্রাহকই শুধু সরাসরি অর্থ স্থানান্তরের মতো লেনদেন করতে পারবেন। উল্লেখ্য, কোনো ব্যাংক হিসাব লিংক করার অর্থ এই নয় যে সেই হিসাবে পূর্ণ অ্যাক্সেস সেই মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পেয়ে যাবে। যদি কোনো গ্রাহক নিতে চান, তাহলে তিনি তা সীমিত পরিসরে নিতে পারবেন। তবে এই ব্যাংক হিসাব লিংক করার অর্থ এই যে যখনই কোনো গ্রাহক অর্থ স্থানান্তরের লেনদেন করতে চাইবেন তখন সিস্টেম স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভ্যালিড ব্যাংক হিসাব ভেরিফাই করে নেবে। এ রকম আরো কিছু নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা মোবাইল ব্যাংকিংসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে অবশ্যই গ্রহণ করতে হবে। তা না হলে হুন্ডি বা মানি লন্ডারিংয়ের মতো ঘটনা, বিশেষ করে মোবাইল ব্যাংকিংসেবা অপব্যবহার করে বিদেশে অর্থপাচারের ঘটনা হ্রাস তো পাবেই না, উল্টো ক্রমান্বয়ে বাড়তেই থাকবে।

 

 লেখক : সার্টিফায়েড অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং স্পেশালিস্ট ও ব্যাংকার, টরন্টো, কানাডা

[email protected]

 



সাতদিনের সেরা