kalerkantho

সোমবার । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৫  মে ২০২০। ১ শাওয়াল ১৪৪১

মুজিবনগর সরকারের তথ্যপত্র ও দলিল সমীক্ষা

বিশ্বজিৎ ঘোষ

২৬ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৮ মিনিটে



মুজিবনগর সরকারের তথ্যপত্র ও দলিল সমীক্ষা

১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে বাংলাদেশ অর্জন করে গৌরবোজ্জ্বল বিজয়। এ বিজয় ছিল দীর্ঘ এক সংগ্রামের সফল পরিণতি। বাঙালি জাতির সবচেয়ে উজ্জ্বল এ বিজয়ের সংগ্রামকে সফল পরিণতি দিতে একাত্তরের মুজিবনগর সরকার পালন করে ঐতিহাসিক ভূমিকা। ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষণা করেন বাংলাদেশের স্বাধীনতা। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল গঠিত হয় অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার, যা মুজিবনগর সরকার নামেই আখ্যায়িত হয়। তত্কালীন কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুর মহকুমার বৈদ্যনাথতলার আমবাগানে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণ করে অস্থায়ী মুজিবনগর সরকার।

নানা সমস্যা ও সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মুজিবনগর সরকার বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনে পরিকল্পিতভাবে অগ্রসর হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করা, তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থ করা, বন্ধু রাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা, জনমত সৃষ্টি করা, সেক্টর কমান্ডারদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা এবং সরকারি প্রশাসনযন্ত্রকে সচল রাখা—এই সমুদয় দায়িত্বই অত্যন্ত সফলভাবে পালন করে মুজিনগর সরকার।

তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে গঠিত মুজিবনগর সরকার যেসব ঐতিহাসিক কাজ করে, তার একটি ছিল তথ্যপত্র প্রকাশ ও বিশ্বজনমত সৃষ্টি। প্রচারমাধ্যমে প্রেস রিলিজ প্রেরণ এবং বহির্বিশ্ব প্রচার বিভাগ (external publicity division) থেকে জার্নাল প্রকাশ ছিল মুজিবনগর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এক কাজ। ওই সব প্রেস রিলিজ এবং জার্নাল থেকে মুজিবনগর সরকারের কর্মকাণ্ডের নানা পরিচয় পাওয়া যায়। কলকাতার ৯ নম্বর সার্কাস এভিনিউ থেকে বাংলাদেশ মিশনের মাধ্যমে প্রেস রিলিজগুলো পাঠানো হতো পত্রিকায়। ১৯৭১ সালের ২৪ এপ্রিল প্রেরিত এক প্রেস রিলিজে সোভিয়েত সরকারের কাছে মওলানা ভাসানীর সহযোগিতার আবেদন সম্পর্কে জানানো হয় :

 ‘In a telegram sent fo the USSR President Podgormy, Prime Minister Kosygin and Secretary General Brezhnev, National Awami Party President, Maulana Abdul Hamid Khan Bhasani appealed to raise their voice against the barbarities Committed by Pakistan Army in Bangladesh and urged the Russian Government to give immediate recognition and all possible help to the Government of Bangladesh.’

মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল বৃদ্ধি এবং জনমত গড়ার ক্ষেত্রে ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র’ পালন করে ঐতিহাসিক ভূমিকা। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে মুজিবনগর সরকারের সদস্যরা মাঝেমধ্যে বক্তৃতা দিয়ে দেশবাসীকে মুক্তিযুদ্ধে অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করতেন। ১৯৭১ সালের ১০ মে প্রচারিত এমন একটি প্রেস রিলিজে দেখা যায়, গণপ্রতাজন্ত্রী বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে এক ভাষণ দেন। ওই প্রেস রিলিজে বলা হয় : Syed Nazrul Islam, Acting President of People’s Republic of Bangladesh in his address to the People of Bangladesh from the Swadhin Bangla Betar Kendra’s today commended the role of Mukti Fouz. He expressed his strong hope that present phase of the struggle for liberation would very soon bring home the recognition of Bangladesh Government by many of the foreign countries. He further added, ‘we have crossed the darkest period of our struggle and heading towards down’.

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ মিশন থেকে প্রেরিত প্রেস রিলিজে দেখা যায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি ভারতের সরকার ও জনগণের অসীম সহযোগিতার চিত্র। কলকাতার বাংলাদেশ মিশনে ভারতীয় জনসাধারণ যে অর্থসাহায্য করেন, একাধিক প্রেস রিলিজে তাদের নামের তালিকা প্রকাশিত হয়। জনৈক মি. বি. গাঙ্গুলি মাত্র এক টাকা সাহায্য করেন, তাও প্রেস রিলিজে উল্লেখ করা হয়।

১৯৭১ সালের ১৩ জুন পাঠানো এক প্রেস রিলিজে জাতির উদ্দেশে তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের ভাষণের সংবাদ জানা যায়। ওই ভাষণে মুক্তিযুদ্ধের সামগ্রিক পরিস্থিতি তিনি বিশদভাবে তুলে ধরেন। আসন্ন বিজয়ের আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন :

‘....be kind and helpful to fellow-suffers in the common struggle, be on your guard against enemy agents seeking to disturb communal and sectional peace, and finally, have faith in the justness and invincibility of your cause. Our victory in assured.’

মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের বিরোধিতা করেছে, অস্ত্রসহ নানাভাবে সাহায্য করেছে পাকিস্তান সরকারকে। মুজিবনগর সরকার বিভিন্ন সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের এ আচরণের প্রতিবাদ জানিয়েছে, পত্রিকায় পাঠিয়েছে প্রেস রিলিজ। ১৯৭১ সালের ২৩ জুন পাঠানো এমনি এক প্রেস রিলিজে দেখা যায় অস্থায়ী সরকারের একজন প্রতিনিধির সংবাদ সম্মেলনের তথ্য :

 ‘He added that Government of Bangladesh would appeal to the Government of USA (i) to call back the ships now Carrying arms to Pakistan, (ii) Freeze stock of all US arms in Pakistan, and (iii) stop forthwith all further shipment of arms, equipment and supplies to Pakistan so as not to be a vital and continuing accessory to Pakistan so as not to be a vital and continuing accessory to genocide and uprooting of more millions of innocent defenseless people and want on destruction and devastation.’

মুজিবনগর সরকার মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনে এবং জনমত সৃষ্টির জন্য ‘বাংলাদেশ’ নামে একটি জার্নাল প্রকাশ করে। ১৯৭১ সালের ৩০ জুন ‘বাংলাদেশ’ শীর্ষক পত্রিকার প্রথম সংখ্যা প্রকাশিত হয়। ‘বাংলাদেশ’ পত্রিকা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সফল পরিণতি আনয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পত্রিকার প্রথম সংখ্যায় ‘Birth of a New Democracy’ শীর্ষক রচনায় বলা হয় :

From Yahya’s latest utterance we see that the Pakistan Army has now made clear its intent to hold into power indefinitely. Democracy is dead in Pakistan and as a result, so it Pakistan itself. In its place we have put the Peoples Republic of Bangladesh which will be truly democratic both in sprit and in practice’.

‘বাংলাদেশ’ পত্রিকায় মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন তথ্য ও সংবাদ পরিবেশিত হতো। মুক্তিযোদ্ধারা কিভাবে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে বিজয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, পত্রিকার প্রতিটি সংখ্যাতেই এ বিষয়ে সংবাদ থাকত। ২৪ নভেম্বর পত্রিকার ২২তম সংখ্যায় দশ বছর বয়সী এক কিশোর মুক্তিযোদ্ধার অসীম বীরত্বের কথা প্রকাশিত হয়। ১৯৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর প্রকাশিত হয় ‘বাংলাদেশ’ পত্রিকার ২৫তম সংখ্যা। মুক্তিযুদ্ধের বিজয়লগ্নে পৃথিবীর সব প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের কাছে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দানের জন্য প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ আহ্বান জানান। পত্রিকায় এ সংবাদটি প্রকাশিত হয় এভাবে :

 ‘Bangladesh Prime Minister Mr. Tajuddin Ahmed has called upon all the progressive countries of the world to recognize the emergence of the independent country of Bangladesh whose objectives were peaceful coexistence, nonalignment in international politics, and opposition to colonialism and imperialism. He said, ours is a [email protected] believe in a [email protected] believe in secularism and socialism.’

৭ ডিসেম্বর জাতির উদ্দেশে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এক ভাষণ দেন। পত্রিকার ২৫তম সংখ্যায় ওই ভাষণের পূর্ণপাঠ মুদ্রিত হয়। অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি তাঁর ভাষণ শেষ করেন এভাবে :

‘The final hour is round the corner, every Bengali should endeavour, in his own manner, to take part in this great achievement. Inshallah, we shall soon establish our full administrative control over the capital city of Dacca and only then the dream of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman will come true.

Long live Sheikh Mujibur Rahman. Long live the struggling people of Bangladesh. Long live Bangladesh Liberation forces. Joy Bangla’.

বিজয়ের অব্যবহিত পরে ২২ ডিসেম্বর প্রকাশিত হয় ‘বাংলাদেশ’ পত্রিকার সর্বশেষ সংখ্যা। ওই সংখ্যায় একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়, যেখানে দেখা যায়, কোন ধরনের মার্কিন সাহায্য গ্রহণে প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের না-সূচক অভিমত। পত্রিকার সংবাদটি ছিল এ রকম :

‘Mr. Tajuddin Ahmed, Prime Minister of Bangladesh, Completely ruled out the possibility of seeking any economic aid from the United States for rebuilding the new nations shattered economy.’

বিশ্বজনমত গড়ে তোলার উদ্দেশ্য নিয়ে ‘বাংলাদেশ’ পত্রিকা প্রকাশিত হতো ইংরেজি ভাষায়। পত্রিকার শিরোনামটিও ছিল ইংরেজিতে—‘Bangladesh’।

মুজিবনগর সরকারের কর্মকাণ্ড কিভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছে, সে সম্পর্কে তথ্যনিষ্ঠ সংবাদ জানার জন্য সে সরকারের প্রেস রিলিজ ও পত্রিকা আমাদের কাছে সরবরাহ করতে পারে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ওই সব তথ্য পর্যালোচনা করলে দূর হতে পারে অনেক বিভ্রান্তি।

লেখক : উপাচার্য, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, সিরাজগঞ্জ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা