kalerkantho

বুধবার । ২৯ জুন ২০২২ । ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৮ জিলকদ ১৪৪৩

অনন্ত বুঝল মা ছাড়া কেউ আপন নয়

মাধব রায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

২৪ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অনন্ত বুঝল মা ছাড়া কেউ আপন নয়

অদ্বৈত মল্লবর্মণ

‘ধনুকের মতো বাঁকা’ তিতাসের তীরবর্তী অঞ্চলে জন্মেছিলেন অদ্বৈত মল্লবর্মণ। গোকর্ণঘাটের সেই মালোপাড়াই তাঁর ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ উপন্যাসের পটভূমি। উপন্যাসেও শিল্পীর নিজস্ব জগতের এক গভীর অভিব্যক্তি লক্ষ করা যায়। শুধু ঘটনা লিপিবদ্ধ করার জন্য নয়, মালোজীবনের গভীর ও গোপনতম ব্যথা ও বেদনার সুর উপন্যাসকে বাংলা সাহিত্যে বিশিষ্ট করে তুলেছে।

বিজ্ঞাপন

মালো সমাজের ভেতরের রূপ, পরিবেশগত ঘনিষ্ঠতা, সামাজিক-সাংস্কৃতিক জীবনের নানামাত্রিক রূপায়ণ ঘটেছে এ উপন্যাসে। জীবন ও জীবিকার সীমাহীন সংগ্রাম, দুষ্ট লোকের ঘূর্ণিপাকে মানবিকতার বিরাট পরাজয়ের চিত্রটি স্পষ্ট করে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন অদ্বৈত মল্লবর্মণ। তিনি দেখিয়েছেন মানুষের জীবনের বিপুল সম্ভাবনা থাকলেও অমোঘ প্রকৃতি ও প্রবহমান কালের সত্য তাঁর জীবনের মূল ট্র্যাজেডি। এই ট্র্যাজেডি আবার ব্যক্তির একার নয়, সমগ্র সমাজের; যেখানে শেষ পর্যন্ত অনন্ত বোঝে মা ছাড়া কেউ আপন নয়। মাছের মতো জন্ম যাদের, মাছের মতোই মৃত্যু যেন নিম্নজীবী মানুষের কণ্ঠস্বরকে অভিজ্ঞতার আলোকে শিল্পায়িত করেছেন লেখক। তিতাস নদী নিজেই রচনা করে চলে এক অনন্য ইতিহাস। সে ইতিহাস বাংলাদেশের নদীবিধৌত শত শত জনপদের নিম্নবর্গের মানুষের বাঁচা-মরার ইতিহাস।



সাতদিনের সেরা