kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

‘গীতাঞ্জলি’ বুকে নিয়ে পরপারে তরুণ মজুমদার

রংবেরং ডেস্ক   

৫ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘গীতাঞ্জলি’ বুকে নিয়ে পরপারে তরুণ মজুমদার

তরুণ মজুমদার [১৯৩১-২০২২]

ওপার বাংলার বিখ্যাত চলচ্চিত্রকার তরুণ মজুমদার আর নেই। গতকাল স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ১৭ মিনিটে কলকাতার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৯১ বছর বয়সী এই চলচ্চিত্র নির্মাতা। কিডনি এবং হৃদযন্ত্রের সমস্যায় দীর্ঘদিন ধরেই ভুগছিলেন তিনি। তিন সপ্তাহ আগে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে কলকাতার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে রাখা হয় হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে। ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছিলেন, চিকিৎসকরা কেবিনে পাঠানোর কথাও ভাবছিলেন। কিন্তু গত শনিবার রাত থেকে শুরু হয় শ্বাসকষ্ট। পরদিন দুপুর থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তাঁকে রাখা হয় ভেন্টিলেশনে। ভেন্টিলেশন থেকে আর ফিরতে পারলেন না তরুণ মজুমদার। মৃত্যুর কারণ হিসেবে চিকিৎসকরা বলেছেন, মাল্টি অরগান ফেইলিওর। কিডনি, হার্টসহ শরীরের অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গের প্রকট সমস্যা ছিল।

তরুণ মজুমদারের জন্ম ব্রিটিশ ভারতের অবিভক্ত বাংলার বগুড়ায় [বর্তমান বাংলাদেশ], ১৯৩১ সালের ৮ জানুয়ারি। তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি ‘চাওয়া পাওয়া’। ১৯৫৯ সালে উত্তম কুমার, সূচিত্রা সেন ও তুলসী চক্রবর্তীকে নিয়ে তৈরি করেছিলেন ছবিটি। ২০১৮ সালে মুক্তি পায় তাঁর সর্বশেষ পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবি ‘ভালোবাসার বাড়ি’, একই বছরে নির্মাণ করেছিলেন তথ্যচিত্র ‘অধিকার’ও। ছয় দশকের ক্যারিয়ারে মোট ছবি বানিয়েছেন ৩৬টি।

১৯৬২ সালে ‘কাচের স্বর্গ’ ছবির জন্য প্রথম ভারতের জাতীয় পুরস্কার পান। মোট চারটি জাতীয় পুরস্কার জয়ী এই পরিচালক ভারতের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান ‘পদ্মশ্রী’ পদকে ভূষিত হন ১৯৯০ সালে। এ ছাড়া সাতবার বিএফজেএ পুরস্কার, পাঁচবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার ও আনন্দলোক পুরস্কার পান। তরুণ মজুমদার তাঁর ২০টি চলচ্চিত্রে অভিনেত্রী সন্ধ্যা রায়কে এবং আটটি চলচ্চিত্রে তাপস পালকে নিয়েছিলেন। অভিনেত্রী সন্ধ্যা রায়কে বিয়েও করেছিলেন তিনি।

মৃত্যুর আগেই কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে দেহদান করে গেছেন এই পরিচালক। কর্নিয়া দান করে গেছেন শঙ্কর নেত্রালয়ে। দেহদানের আগে তাঁর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছিল দীর্ঘদিনের কর্মস্থল ‘এনটিওয়ান স্টুডিও’তে, এ সময়ে তাঁর বুকের ওপর রাখা ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাব্যগ্রন্থ ‘গীতাঞ্জলি’। সবটাই করা হয়েছে তরুণ মজুমদারের ‘শেষ ইচ্ছা’ অনুযায়ী।



সাতদিনের সেরা