kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

আজ ও কাল

ঈদের দুই ছবির ‘সেন্সর পরীক্ষা’

রংবেরং প্রতিবেদক   

৩ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঈদের দুই ছবির ‘সেন্সর পরীক্ষা’

‘সাইকো’ ছবির একটি দৃশ্যে পূজা চেরি ও জিয়াউল রোশান

ঈদে ছবি মুক্তির দৌড়ে আছে তিনটি ছবি—মুর্তজা অতাশ জমজমের ‘দিন—দ্য ডে’, রায়হান রাফির ‘পরাণ’ ও অনন্য মামুনের ‘সাইকো’। অনেক আগেই ‘দিন—দ্য ডে’ ঈদে মুক্তির ঘোষণা দিয়েছিলেন অনন্ত জলিল। তখন প্রতিযোগিতায় ছিল শাকিব খান অভিনীত আরো দুটি ছবি—‘অন্তরাত্মা’ ও ‘লিডার—আমিই বাংলাদেশ’। তবে গত মাসের মাঝামাঝি সময়ে এসে শাকিব অভিনীত ছবি দুটির প্রযোজকরা পিছিয়ে যান।

বিজ্ঞাপন

তখনই তড়িঘড়ি করে রায়হান রাফি ও অনন্য মামুন ঈদের ছবির দৌড়ে শামিল করেন ‘পরাণ’ ও ‘সাইকো’কে।

তিনটি ছবির পরিচালকই এরই মধ্যে হল বুকিং শুরু করেছেন। প্রচার-প্রচারণাও চলছে। বাংলাদেশ-ইরান যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘দিন—দ্য ডে’ সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে গত মাসের প্রথম সপ্তাহে। তবে শরীফুল রাজ-বিদ্যা সিনহা মিম অভিনীত ‘পরাণ’ ও জিয়াউল রোশান-পূজা চেরি অভিনীত ‘সাইকো’ এখনো সেন্সর ছাড়পত্রই পায়নি! পরিচালকদ্বয় জানিয়েছেন, সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা আজ দেখবেন ‘পরাণ’, কাল দেখবেন ‘সাইকো’। যদি ছবি দুটি ছাড়পত্র না পায় বা কর্তনের শর্ত দেয় বোর্ড, তাহলে ঈদের ছবির দৌড় থেকে ছিটকে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

তবে অনন্য মামুন বলেন, ‘নিশ্চয়ই আমার ছবিটি মুক্তি দিতে পারব। ছবিতে এমন কোনো দৃশ্য নেই যেটা নিয়ে সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা আপত্তি তুলতে পারেন। আমি আশাবাদী, সদস্যরা কাল ছবিটি দেখার পরই ছাড়পত্র দেবেন। ’

সেন্সর বোর্ডের সদস্যদের অন্যতম অভিনেত্রী রোজিনা। তাঁর পরিচালিত ও প্রযোজিত সরকারি অনুদান পাওয়া ছবি ‘ফিরে দেখা’ ছবিটি সেন্সরে জমা দিয়েছিলেন গত সপ্তাহে। আগামীকাল ছবিটি দেখার কথা ছিল। অনন্য মামুনের ‘সাইকো’ ছবির জন্য তিনি নিজের ছবি পিছিয়ে নিয়েছেন।

রোজিনা বলেন, ‘মামুন আমাকে ফোন দিয়ে অনুরোধ করেন, আমার ছবিটা পিছিয়ে দিতে। আমিও দেখলাম ঈদের ছবি, হল বুকিং চলছে, তাঁকে সুযোগ দেওয়া উচিত। তা ছাড়া আমার ছবি ঈদের পরে মুক্তি পাবে। অনন্য মামুনের ছবি আগেও সেন্সরে দেখেছি। ভালো নির্মাণ করেন। ’

এদিকে ঈদের প্রায় ১০ দিন আগে থেকেই চট্টগ্রামের মাল্টিপ্লেক্স সিলভার স্ক্রিনে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে ‘পরাণ’-এর। ১০টির বেশি হলও বুকিং করেছে পরিবেশনা সংস্থা ‘দি অভি কথাচিত্র’।

পরিচালক রাফি বলেন, “আমার প্রতি দর্শকের আস্থা আছে বলেই অগ্রিম টিকিট বুকিং দিয়েছেন। হল মালিকরাও আগ্রহ দেখিয়ে প্রিন্ট বুকিং করছেন। একটা নিখুঁত প্রেমের ছবি বানিয়েছি। আমার প্রথম ছবি ‘পোড়ামন ২’ও ছিল প্রেমের ছবি। মাঝখানে অনেক কাজ করলেও এমন প্রেমের ছবি আর বানাইনি। ”

এদিকে সেন্সর ছাড়পত্র পাওয়ার আগেই ছবি মুক্তির ঘোষণা ও হল বুকিং করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।

হল বুকিং এজেন্ট সমিতির নেতা ও প্রযোজক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর বলেন, “প্রায় ঈদেই এমন ঘটনা ঘটে। ঈদের আগের দিনও অনেক সময় সেন্সর ছাড়পত্র পায় ছবি। সেই ছবি এক মাস আগেই বুকিং করে থাকি। ‘পরাণ’ ও ‘সাইকো’ সেন্সর ছাড়পত্র পাওয়ার আগেই যদি টিকিট বিক্রি বা হল বুকিং করে, তাহলে বুঝতে হবে ছবির সুদিন ফিরছে। কারণ বুকিং এজেন্টরাই আগে বোঝেন দর্শকদের চাহিদা কী, হলে দর্শক আসবে কি না। ’



সাতদিনের সেরা