kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জয়ার প্রথম হিন্দি সিরিজ সঙ্গে নওয়াজ

রংবেরং প্রতিবেদক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জয়ার প্রথম হিন্দি সিরিজ সঙ্গে নওয়াজ

২০১৩ সালে ‘আবর্ত’ দিয়ে শুরুর পর ওপার বাংলায় স্বল্প ও পূর্ণদৈর্ঘ্য মিলিয়ে জয়া আহসানের ১৩টি ছবি মুক্তি পেয়েছে। কাজ করেছেন কলকাতার বড় পরিচালকের সঙ্গে। এবার পশ্চিম বাংলার গণ্ডি ছাড়িয়ে সর্বভারতীয় দর্শকদের জন্য কাজ করবেন বাংলাদেশি অভিনেত্রী। পরিচালক সায়ন্তন মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, নকশালবাড়ী আন্দোলন নিয়ে তাঁর হিন্দি সিরিজে দেখা যাবে জয়াকে। সিরিজে নকশালবাড়ী আন্দোলনের প্রাণপুরুষ চারু মজুমদারের স্ত্রী লীলা মজুমদারের চরিত্রে অভিনয় করবেন জয়া। বিপ্লবী চারু মজুমদারের চরিত্রে দেখা যাবে বলিউড অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীকে। জয়া আগে সায়ন্তনের সঙ্গে ‘ঝরা পালক’ ছবিতে কাজ করেছেন। পূজায় মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ছবিটিতে তাঁকে দেখা যাবে জীবনানন্দ দাশের স্ত্রীর চরিত্রে। সায়ন্তন ‘আনন্দবাজার পত্রিকা’কে বলেন, ‘ছবিতে কাজ করার সময়ই জয়া অনুরোধ জানিয়েছিলেন জাতীয় স্তরের কাজে তাঁকে সুযোগ দেওয়ার জন্য। সেই জায়গা থেকেই লীলা মজুমদারের চরিত্রের জন্য বলতেই এককথায় রাজি তিনি।’  

তবে এই সিরিজে অভিনয় প্রসঙ্গে জয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাঁর ফোন বন্ধ পাওয়া যায়, হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা দিয়ে জবাব মেলেনি। নাম ঠিক না হওয়া এই প্রজেক্ট হতে যাচ্ছে নকশাল আন্দোলনকালীন পুলিশ কর্মকর্তা রুণু গুহ নিয়োগীর লেখা ‘সাদা আমি কালো আমি’ উপন্যাস অবলম্বনে। বাংলা, হিন্দি, ইংরেজি তিন ভাষায় তৈরি হবে সিরিজটি। সব ঠিক থাকলে সামনের বছর শুটিং শুরু করে পূজার আগেই শেষ করার ইচ্ছা পরিচালকের। মূলত, পুলিশ অফিসার রুণু গুহর চোখ দিয়ে দেখানো হবে গোটা সিরিজ। রুণু গুহর চরিত্রে অভিনয় করবেন রণিত রায়। তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থ শঙ্কর হবেন সব্যসাচী চক্রবর্তী, চারু মজুমদারের অন্যতম সঙ্গী কানু সান্যালের চরিত্র করবেন শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। সিরিজের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র ওপার বাংলার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু। সেই চরিত্রে পরেশ রাওয়াল বা বোমান ইরানিকে দেখা যেতে পারে। সিরিজের চিত্রনাট্যে সায়ন্তনকে সাহায্য করেছেন ‘আন্ধাধুন’ খ্যাত লেখক অরিজিৎ বিশ্বাস। এ ছাড়া আরো বেশ কয়েকজন বলিউড চিত্রনাট্যকার যুক্ত হবেন এই বড় প্রজেক্টের সঙ্গে। সায়ন্তন জানালেন, নকশালবাড়ী আন্দোলন নিয়ে কাজ করার কারণ, “মুম্বাইয়ের পটভূমিতে ‘সেক্রেড গেমস’, উত্তর প্রদেশের পটভূমিতে ‘মির্জাপুর’ হয়েছে। এবার পশ্চিমবঙ্গের আন্দোলনের ইতিহাসও তুলে ধরার সময় এসেছে।”

তিনটি পর্বে দেখানো হবে সিরিজের গল্প। প্রথম পর্বে ১৯৪৭ থেকে ১৯৭২, দ্বিতীয় পর্বে ১৯৭২ থেকে ১৯৯০ এবং শেষ কিস্তিতে দেখানো হবে এর পর থেকে বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপট।

সিরিজটি কোন প্ল্যাটফর্মে দেখা যাবে সেটি প্রকাশ করেননি।



সাতদিনের সেরা