kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

নাঙ্গলকোট প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ‘দুর্নীতির আখড়া’

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কয়েকজন শিক্ষক নেতার বিরুদ্ধে বিভিন্ন খাতে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। শিক্ষকদের যাতায়াত ভাতা, উপবৃত্তি, বিল-ভাউচার পাস, ডিপিএড ট্রেনিং, উৎসব ভাতা, মাতৃত্বকালীন ছুটিসহ বিভিন্ন খাতে এ দুর্নীতি করা হয়।

জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে উপজেলার ১৫১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা যাতায়াত ভাতা পাওয়ার কথা থাকলেও ভাতা পেয়েছেন ১৬৫ জন শিক্ষক। তা ছাড়া প্রধান শিক্ষকরা যাতায়াত ভাতা পাওয়ার কথা থাকলেও শিক্ষা অফিস স্বজনপ্রীতি করে কয়েকজন সহকারী শিক্ষককেও যাতায়াত ভাতা দিয়েছে। পৌরসভার শিক্ষকদের যাতায়াত ভাতা দেওয়ার নিয়ম না থাকলেও নাঙ্গলকোট পৌর সদরের মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ ছয়জন সহকারী শিক্ষকের নামে যাতায়াত ভাতা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে শিক্ষকদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ বিরাজ করছে। শিক্ষকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রতিবাদ করছেন।

এদিকে উপজেলা সদরসহ নিকটবর্তী বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সাত-আট হাজার টাকা করে ভাতা দেওয়া হলেও দূরবর্তী বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দেওয়া হয়েছে মাত্র ৮০০ টাকা করে। দূরবর্তী বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে রয়েছে বাম দুবাইর বাজার, গোরকমুড়া, তপোবন, শ্যামপুর, উল্লাখালি, আটগাঁও, বানাবাড়িয়া, কিনারা, চরজামুরাইল, পাইকোট, চাটিতলা, পুজকরা পশ্চিম, বাগরা, ধুড়িয়ারা, বাহুয়া, মেরকোট, কান্দাল, সোন্দাইল, নিশ্চিন্তপুর, গোহারুয়া ও ঘোড়াময়দান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তা ছাড়া প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে সরকারিভাবে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে বায়োমেট্রিক মেশিন বসানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এর জন্য ১৫১টি বিদ্যালয় থেকে বায়োমেট্রিক মেশিন বাবদ ২৭ লাখ টাকা দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে শিক্ষা অফিসের বিরুদ্ধে।

উপজেলা সহকারী শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও দৌলখাঁড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রমজান আলী বলেন, শিক্ষা অফিসের দুর্নীতির কথা বলে শেষ করা যাবে না। শিক্ষা অফিস দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আল আমীন বলেন, ‘পৌরসভার বা উপজেলার কোনো শিক্ষক সরকারি কাজে কোথাও যাতায়াত করলে, বিশেষ করে উন্নয়ন মেলা, খেলাধুলা ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় ছাত্র-ছাত্রীরা অংশগ্রহণ করলে সে ক্ষেত্রে শিক্ষকদের যাতায়াত ভাতা দিতে হয়। সমস্যাটি খতিয়ে দেখা হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা