kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফায়ার সার্ভিস পাচ্ছে রূপপুর

ওমর ফারুক   

৪ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফায়ার সার্ভিস পাচ্ছে রূপপুর

পাবনার রূপপুরে অত্যাধুনিক ফায়ার সার্ভিস স্টেশন করা হচ্ছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন নির্মিত এই স্টেশনটিতে কাজ করবেন বিদেশ থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বাংলাদেশি কর্মীরা। যাতে যেকোনো দুর্ঘটনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হন তাঁরা।

পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরেও আরেকটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

যেটিতে রাশিয়ার প্রশিক্ষিত জনবল কাজ করবে এবং রুশ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। বিদ্যুেকন্দ্রের ভেতরের ফায়ার সার্ভিসকে সহযোগিতা করবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা স্টেশনটি। সহযোগিতা করার জন্যও লাগবে এখানে দায়িত্ব পালনের মতো প্রশিক্ষণ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে ২.৪ গিগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন। দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হওয়ায় এ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অভিজ্ঞতার অভাব আছে এখানের কর্মীদের। বিদ্যুেকন্দ্রের দুটি ইউনিটের মধ্যে একটি ইউনিট থেকে ২০২৩ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। বিদ্যুেকন্দ্রটি রাশিয়ার রোসাটোম স্টেট অ্যাটমিক এনার্জি করপোরেশন তৈরি করছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হওয়াকে সামনে রেখে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন করা হচ্ছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ চট্টগ্রাম, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, পাবনা এলাকায় ১১টি আধুনিক ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। আগামী বছর জুনের মাঝে এগুলোর কাজ শেষ হবে। এরই মধ্যে প্রকল্পগুলোর ৫১ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আগামী বছর জুন মাসে রূপপুরে ফায়ার স্টেশন চালু করা যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

প্রকল্প পরিচালক শহীদ আতাহার হোসেন গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্টেশনে ৬৮ মিটার উচ্চতাসম্পন্ন টিটিএল (টার্নটেবল লেডার) আনা হচ্ছে। পৃথিবীতে এর চেয়ে বেশি লম্বা লেডার আর নেই। এটি দিয়ে ২৭ তলা পর্যন্ত কাজ করা সম্ভব হবে। ’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে আরেকটি ফায়ার স্টেশন করা হচ্ছে। সেটি রাশিয়ার লোকজন পরিচালনা করবে। আমরা যেটা করছি সেটা ওই কেন্দ্রকে সহযোগিতা করবে। এই কেন্দ্রে ২০ হাজার লিটার পানি ধরে এমন গাড়ি আনা হচ্ছে। ’

সূত্র জানায়, ১১টি মডার্ন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন স্থাপন করা সাভারের জিরাবো, গাজীপুর চৌরাস্তা, রাজেন্দ্রপুর, সারাবো (কাশিমপুর), কোনাবাড়ী, নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর ব্রিজ, শিবু মার্কেট, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী, কালুরঘাট ও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং রূপপুর গ্রিন সিটিতে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর ২৩টি প্যাকেজের মাধ্যমে ৪০ ধরনের সরঞ্জামাদি সংগ্রহের জন্য দরপত্র উন্মুক্ত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক মামুন মাহমুদ (প্রশাসন অর্থ) কালের কণ্ঠকে বলেন, ১০০ জনের মতো কর্মীকে বিদেশে পাঠিয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে আনা হবে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরাই স্টেশনে দায়িত্ব পালন করবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে ৬০ মিটার উচ্চতাসম্পন্ন টিটিল রয়েছে। নতুন এই প্রকল্পের অধীনে প্রথমবারের মতো ৬৮ মিটারের টিটিএল আসছে। এর সঙ্গে শিল্প এলাকাগুলোতে কেমিক্যালের আগুন নেভানোর জন্য আনা হচ্ছে অত্যাধুনিক ফোম টেন্ডার। এক কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে ফায়ার সার্ভিসে যে ফোম টেন্ডার রয়েছে অত্যাধুনিক ফায়ার স্টেশনগুলোতে আরো উন্নত মানের ফোম টেন্ডার আনা হচ্ছে।

 



সাতদিনের সেরা