kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

অপমানের প্রতিশোধ নিতে কিশোরী অপহরণ, গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপমানের প্রতিশোধ নিতে রাজধানীর তেজগাঁও এলাকা থেকে এক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন সায়ের আলম পাভেল (৩৪), শেখ আলমগীর (২৩) ও জাহাঙ্গীর আলম (৩৫)। তাঁদের গ্রেপ্তারের সময় অপহৃত কিশোরীকে (১৪) উদ্ধার করা হয়।

বিজ্ঞাপন

গতকাল শুক্রবার নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপির) তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) এইচ এম আজিমুল হক। তিনি জানান, ওই কিশোরীকে অপহরণের পর তাঁর পরিবারের কাছে মোটা অঙ্কের মুক্তিপণ দাবি করে অহরণকারীচক্রের সদস্যরা। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা বৃহস্পতিবার তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাতেই অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান চালানো হয়। এক পর্যায়ে টাঙ্গাইলের একটি বাসা থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার ও তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের উদ্ধৃতি দিয়ে ডিসি আজিমুল হক বলেন, ধরা পড়ার আগে সায়ের আলম পাভেল ‘প্রেমের প্রস্তাব’ দিয়েছিলেন উদ্ধার হওয়া কিশোরীর বড় বোনকে। পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে কিশোরীর মা-বাবা তাঁকে অপমান করেন। সেই অপমানের প্রতিশোধ নিতে পরিকল্পনা করে ওই তরুণীর ছোট বোনকে টার্গেট করেন তিনি। এক পর্যায়ে সায়ের তাঁর এক লন্ডনপ্রবাসী ভাইয়ের সঙ্গে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ করেন।

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার সায়ের আলম পেশায় একজন রংমিস্ত্রি। তবে পরিচয় দিতেন বিবিএ, এমবিএ ডিগ্রিধারী, আবার কখনো ম্যাজিস্ট্রেটের ছেলে হিসেবে। তাঁর কথা ওই কিশোরী বিশ্বাস করে। সায়ের কৌশলে ১৪ আগস্ট নবম শ্রেণির ছাত্রী ওই কিশোরীকে প্রলোভন দেখিয়ে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে অপহরণ করেন। এরপর তার বাবার কাছে এক লাখ ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। মুক্তিপণ না দিলে তাঁর মেয়েকে বিক্রি করার হুমকি দেওয়া হয়। বিষয়টি পুলিশকে না জানানোরও হুমকি দেওয়া হয়।



সাতদিনের সেরা