kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি মূল্যস্ফীতি উসকে দেবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি মূল্যস্ফীতি উসকে দেবে

বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশের মানুষের ওপর এক ধরনের বাড়তি মূল্যস্ফীতির চাপ রয়েছে। নতুন করে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি এই মূল্যস্ফীতিকে উসকে দেবে বলে মনে করে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।

তারা বলছে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে যাতায়াতব্যবস্থার খরচ বেড়ে যাবে। বাসভাড়া, ট্রাকভাড়া ও লঞ্চভাড়া বেড়ে যাবে।

বিজ্ঞাপন

এরই মধ্যে ভাড়া বেড়ে গেছে। সরকার ভর্তুকি কমাতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা কোনোভাবে মেনে নেওয়া যায় না। এ ক্ষেত্রে তারা তেলের দাম পুনর্বিবেচনাসহ সরকারকে তিনটি সুপারিশ দিয়েছে।

গতকাল বুধবার রাজধানীর ধানমণ্ডিতে সিপিডির কার্যালয়ে ‘জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এখন এড়ানো যেত কি’ শীর্ষক আলোচনায় সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন এসব বিষয় তুলে ধরেন। তাঁদের দেওয়া সুপারিশগুলো হলো : জ্বালানি তেলের দাম পুনর্বিবেচনা করা, বিশেষত দাম কমিয়ে সবন্বয় করা, ওএমএস ট্রাকে করে খোলাবাজারে পণ্য বিক্রি বাড়ানো, বেশনিং কার্ডের মাধ্যমে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের মধ্যে কম দামে পণ্য বিতরণ এবং মাঝারি ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে ঋণ বিতরণ।  

আলোচনার শুরুতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনায় ফাহমিদা খাতুন বলেন, সরকার চলতি বছরে তেল বিক্রি করে এক হাজার ২৬৪ কোটি টাকা লাভ করলেও আট হাজার ১৫ কোটি টাকা লোকসানের কথা বলছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনে (বিপিসি)। এ ছাড়া ২০১৫ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪৬ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকা লাভ করেছে বিপিসি।

তিনি বলেন, ‘অন্যদিকে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে সারা বিশ্বে জ্বালানি তেলের দাম কমছে, অথচ আমাদের দেশে বাড়ানো হলো। কেউ বলছে, আমাদের দেশ থেকে নাকি অন্য দেশে কম। কিন্তু নেপাল ও শ্রীলঙ্কা ছাড়া কোথাও তেলের দাম বাড়তি নেই। এই বাড়তি তেলের দাম নতুন করে মূল্যস্ফীতি উসকে দেবে। ’

তিনি বলেন, ‘আমরা ভর্তুকির পক্ষে নই। তবে সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা খুব ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে সামনে। সরকার চাইলে পর্যায়ক্রমে ধীরে ধীরে তেলের দাম বাড়াতে পারত। ’ এ সময় তিনি জ্বালানি তেলের দাম পুনর্বিবেচনার দাবি জানান।  

সরকার এত সাহস করল কিভাবে : এ সময় আলোচনায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাবেক অধ্যাপক, জ্বালানি ও টেকসই উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ ইজাজ হোসেন বলেন, ‘আমরা কেউ ভর্তুকি পছন্দ করি না। কিন্তু হঠাৎ জ্বালানি তেলের বাড়তি দাম চাপিয়ে দেওয়া হলো। আমরা এটা দেখে আশ্চর্য হয়ে গেছি। সরকার এত সাহস করল কিভাবে? জ্বালানি তেলকে রাজস্ব আয়ের জন্য সরকার ব্যবহার করছে। পরোক্ষভাবে রাজস্ব নিতেই মূলত জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। ’

অনেক শ্রমিকের গ্রামে যাওয়ার আশঙ্কা : বাংলাদেশ নিটওয়্যার প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিকেএমইএ) সহসভাপতি ফজলে শামীম এহসান বলেছেন, ‘আমরা এমনিতেই নানা সমস্যায় আছি। ডিজেলের দাম বৃদ্ধিতে জীবনযাত্রার খরচ বেড়ে যাবে। অনেক শ্রমিক খরচ মেটাতে না পেরে গ্রামে চলে যাবে। এতে আমাদের শিল্প বন্ধ হবে। ৪০ লাখ পোশাক শ্রমিক বিপদে পড়বে। ’

বিপিসির লাভ-ক্ষতির হিসাব জানানো উচিত : সিপিডির গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘বিপিসির ত্রুটিপূর্ণ তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার। গত ছয় বছরে বিপিসি ৪৬ হাজার কোটি টাকা লাভ করেছে, যেখান থেকে সরকার নিয়েছে ১০ হাজার কোটি টাকা। বাকি ৩৬ হাজার কোটি টাকা কোথায়?’

বলা হয়েছে, ‘ওই টাকার মধ্যে ৩৩ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু সেই হিসাব খুঁজে পাই না। আমি মনে করি, বিপিসির হিসাব জনগণকে জানানো উচিত। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, বিভিন্ন ব্যাংকে বিপিসির ২৫ হাজার ২৬৪ কোটি টাকা জমা রয়েছে। তাহলে ওই টাকা কোন টাকা? এ ছাড়া বাকি টাকা কোথায়? আমার ধারণা, বাকি টাকাও বিপিসির হিসাবেই রয়েছে। তাহলে কেন লোকসান দেখিয়ে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলো?’

অফিসগামী যাত্রীদের ভাড়া বেড়েছে ৭০ থেকে ২০০ টাকা : আলোচনায় অংশ নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, ‘আমরা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে দেখেছি, অফিসগামী গণপরিবহনের যাত্রীদের ভাড়া দৈনিক বেড়েছে ৭০ থেকে ২০০ টাকা করে। মাসে তা দুই হাজার থেকে ছয় হাজার টাকা পর্যন্ত। ’ তিনি বলেন, ‘যাঁরা কর্মজীবী-শ্রমজীবী আছেন, তাঁদের প্রায় ৮০ শতাংশের বেতনে যাতায়াত ভাড়া দেওয়া হয় না। আমরা দুই দিনে ২৮টি বাস কাউন্টারে পর্যবেক্ষণ করে এ তথ্য-উপাত্ত আপনাদের দিচ্ছি। ’ তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘আমি একজন চাকরিজীবীর সঙ্গে কথা বলেছি, যিনি বেতন পান ১০ হাজার টাকা। তাঁর স্ত্রীও চাকরি করেন। কিন্তু এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি গ্রামে চলে যাবেন।



সাতদিনের সেরা