kalerkantho

শুক্রবার । ৭ অক্টোবর ২০২২ । ২২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

একমাত্র মেয়েকে জীবিত ফিরে পেতে ব্যাকুল মা

আচমকা উধাও হয়ে যাওয়া মেয়েটির খোঁজে আপনজনরা হয়রান

মাসুদ রানা   

৯ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এইচএসসি পরীক্ষার্থী মেয়ে কলেজে মডেল টেস্ট দিচ্ছে। অভিভাবকদের কক্ষে অপেক্ষায় মা। কিন্তু পরীক্ষা শেষে মেয়ের আর দেখা নেই। আচমকা উধাও হয়ে যাওয়া মেয়েটির খোঁজে আপনজনরা হয়রান।

বিজ্ঞাপন

রাতে মায়ের মোবাইল ফোনে খুদে বার্তা এলো বাসায় ফিরছেন মেয়ে। কিন্তু মেয়ে আর ফিরলেন না।

২৩ জুনের সেই প্রতীক্ষার প্রহর এর মধ্যে দেড় মাস গড়িয়েছে।   মায়ের অভিযোগ, মেয়েটি সেদিন তার প্রেমিক ইশতিয়াকের সঙ্গে চলে যায়। ওই যুবকের বিরুদ্ধে থানায় মামলাও করেন তিনি। সে মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কথিত প্রেমিক এখন কারাগারে।

রাজধানীর মুগদা এলাকায় মায়ের সঙ্গে থাকতেন নিখোঁজ মেয়েটি। এ ঘটনায় ২৫ জুন রমনা থানায় অপহরণের অভিযোগে মামলা করেন মা। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকৌশল শিক্ষার্থী ইশতিয়াক আহম্মেদ চিশতীর সঙ্গে পরিচয় তাঁর মেয়ের। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২৩ জুন মেয়েটি ইশতিয়াকের সঙ্গে ছিল বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়। অভিযোগ করা হয়, ইশতিয়াক তাকে অপহরণ করেছেন।

ইশতিয়াকের পরিবার এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

মামলার তদন্ত প্রথমে শুরু করে রমনা থানার পুলিশ। তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মফিজুর রহমান বলেন, এ মামলায় ইশতিয়াককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি এখন কারাগারে। বিভিন্ন সড়কের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা গেছে, বেইলি রোড থেকে মেয়েটিকে ইশতিয়াক ও তাঁর কয়েকজন বন্ধু গেণ্ডারিয়া এলাকায় নিয়ে যান। রাত ৮টার দিকে ওই মেয়েকে একা একটি রিকশায় দেখা গেছে। এরপর তাদের আর দেখা যায়নি।

এরপর মেয়ের মায়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত পুলিশের গোয়েন্দা শাখাকে (ডিবি) মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দেন।

কালের কণ্ঠকে মা বলেন, ‘আমি কিছু চাই না। আমার একমাত্র মেয়েকে জীবিত ফিরে পেতে চাই। দেড় মাস কেটে গেল, কিন্তু  পুলিশ এখনো আমার মেয়ের সন্ধান দিতে পারল না।   ২৩ জুন রাতে সুকন্যার সঙ্গে মোবাইল না থাকলেও রাত ৮টার দিকে তাঁর আইডি থেকে একটি মেসেজ আসে। তাতে লেখা ছিল, আম্মু আমি বাসায় আসতেছি। কিন্তু আজও সুকন্যা বাসায় ফেরেনি। ’

মামলার এখনকার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির রমনা বিভাগের এসআই মো. সালাউদ্দিন কাদের কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এ মামলায় গ্রেপ্তার আসামিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।   কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তাঁকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে আবেদন করা হবে। এখন তদন্তের স্বার্থে সব কিছু বলা যাবে না। মেয়েটিকে উদ্ধারের বিষয়ে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা