kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

জাতীয় বাজেটের ২০% শিক্ষা খাতে বরাদ্দের দাবি

বাকশিসের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জাতীয় বাজেটের ২০% শিক্ষা খাতে বরাদ্দের দাবি

জাতীয় বাজেটের ২০ শতাংশ শিক্ষা খাতে বরাদ্দ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি (বাকশিস)। সংগঠনের পক্ষ থেকে শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ এবং ঈদুল আজহার আগে পূর্ণাঙ্গ বোনাসসহ ১২ দফা দাবি দ্রুত বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়েছে। দাবি মানা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের মওলানা মোহাম্মদ আকরম খাঁ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাকশিসের সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হক।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. ফয়েজ হোসেনের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাকশিসের অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ কানাই লাল সরকার, ঢাকা মহানগরের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ শেখ জুলহাস উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জাকির হোসেন, দপ্তর সম্পাদক অধ্যক্ষ মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, সহদপ্তর সম্পাদক মুর্শিদ শাকুরী প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কভিড-১৯ ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির সময়ে ২০২২-২৩ বাজেটে শিক্ষা খাতে যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, তা প্রয়োজনের তুলনায় কম। বেসরকারি কলেজের একজন শিক্ষক ঈদ উৎসব ভাতা পান বেসিক বেতনের ২৫ শতাংশ, বাড়িভাড়া পান এক হাজার টাকা। তাঁদের পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা ভাতা দেওয়া হয় না। প্রতিবাদ সত্ত্বেও অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ নিয়োগের নীতিমালা জনবলকাঠামো ২০২১-এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যার ফলে বেসকারি কলেজে অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ সুযোগে একটি স্বার্থান্বেষী মহল সরকারি কলেজের শিক্ষকদের বিভিন্ন বেসরকারি বড় বড় কলেজে প্রেষণে নিয়োগ দিয়ে চলেছে, যা কোনো অবস্থাতেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে উল্লেখ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উত্থাপিত ১২ দফা দাবিতে বলা হয়, এমপিওভুক্ত কলেজ শিক্ষকদের জন্য পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা, বাড়িভাড়া ও চিকিৎসা ভাতা দিতে হবে। সরকারি কলেজের মতো বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দিতে হবে। বেসরকারি এমপিওভুক্ত কলেজের অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ নিয়োগে ২০২১-এর জনবলকাঠামোর অন্তর্ভুক্ত নীতিমালা বাতিল করে ২০১০-এর নীতিমালা পুনর্বহাল করতে হবে। বেসরকারি কলেজে সরকারি কলেজ থেকে প্রেষণে শিক্ষক বা অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ নিয়োগের জন্য ২০২১-এর নীতিমালা ধারা বাতিল করতে হবে। এর আগে যেসব সরকারি শিক্ষককে প্রেষণে বেসরকারি কলেজে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, তাঁদের অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে ইত্যাদি।

 

 



সাতদিনের সেরা