kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

‘গ্রাহক সন্তুষ্টির মাধ্যমে এগিয়ে যাবে বাজুস’

নারায়ণগঞ্জে গতকাল বাজুসের নতুন সদস্যদের বরণ অনুষ্ঠান হয়

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৪ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘গ্রাহক সন্তুষ্টির মাধ্যমে এগিয়ে যাবে বাজুস’

নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় গ্রান্ড হল রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠান শেষে বাজুসের সভাপতির পক্ষে সম্মাননা স্মারক গ্রহণ করেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিজনেস এডিটির রুহুল আমিন রাসেল। ছবি : কালের কণ্ঠ

‘জুয়েলারির মান উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। জুয়েলারি ব্যবসা এমনই ব্যবসা, যা এ দেশের সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িয়ে আছে। গ্রাহক সন্তুষ্টির মাধ্যমে আমরা আরো অনেক দূর এগিয়ে যাব। ’—এ অঙ্গীকার বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) নেতাদের।

বিজ্ঞাপন

নারায়ণগঞ্জে বাজুসের নতুন সদস্যদের বরণ অনুষ্ঠানে তাঁরা এই অঙ্গীকার করেন।

গতকাল সোমবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় গ্রান্ড হল রেস্টুরেন্টে এই অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠানে বাজুস নারায়ণগঞ্জের ২২০ জন নতুন সদস্যকে সদস্যপত্র, বাজুস সার্টিফিকেট, ফুল, আইডি কার্ড তুলে দেন অতিথিরা।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, স্বর্ণ ব্যবসায়ে নারায়ণগঞ্জে গত ২৬ বছরে যা হয়নি তা মাত্র ছয় মাসে সম্ভব হয়েছে। বাজুস সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীরের ব্যবসায় পরিচালনার বিশেষ দক্ষতা ও দূরদৃষ্টি এ ব্যবসাকে আরো অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বাজুসের সহসভাপতি মো. শহিদুল্লাহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাজুসের সাবেক সভাপতি ও চেয়ারম্যান এম এ ওয়াদুদ খান। আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি ও চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়, এনামুল হক খান, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চেয়ারম্যান গুলজার আহমেদ, সহসম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য ও সদস্যসচিব মো. রিপনুল হাসান। আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা জুয়েলারি সমিতির সাধারণ সম্পাদক হানিফ উদ্দিন সেলিম, স্বর্ণ ব্যবসায়ী মনির হাসান খান, ফারুক আহমেদ, আমীর হোসেন খান, অভিজিত্ রায়, গোলাম মোহাম্মদ খোকা, লিটন খন্দকার, নজরুল ইসলাম রোমান, আসাদুজ্জামান প্রমুখ।

এম এ ওয়াদুদ খান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে ভালো জুয়েলারি অলংকার বিক্রি হয়। জুয়েলারির মান উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। আমরা এমন এক ব্যবসায় আছি, যা এ দেশের সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িয়ে আছে। ’ তিনি ব্যবসায়ীদের স্বর্ণ মেমোর মাধ্যমে নিতে এবং এনআইডি রাখতে পরামর্শ দেন। সংগঠনের সভাপতি সায়েম সোবহান আনভীর ব্যবসায়ীদের পাশে আছেন উল্লেখ করে তিনি ‘আপনারা সত্ভাবে ব্যবসা করেন। যে দোকানে বাজুসের লোগো নেই সেখান থেকে কেউ জুয়েলারি কিনলে প্রতারিত হতে পারেন’ বলে সতর্ক করেন তিনি। বাংলাদেশেই বছরখানেকের মধ্যে স্বর্ণ তৈরি হবে এবং এ ব্যবসায়ে সুদিন আসবে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

ডা. দিলীপ কুমার রায় বলেন, আগামী দিনে নারায়ণগঞ্জে বাজুসের নির্বাচিত কমিটি হবে। এ লক্ষ্যে একটা নির্বাচন কমিশন করা হবে।

অতিথি ও ব্যবসায়ীরা তাঁদের বক্তব্যে বলেন, ‘আমরা সবাই একসঙ্গে মিলেমিশে জুয়েলারিশিল্পের ইতিহাস বদলে দিতে চাই। আমাদের নতুন নেতৃত্ব জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের জন্য ‘গোল্ড ব্যাংক’ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছেন। তরল সোনা রিফাইন করে বিদেশে রপ্তানির পরিকল্পনা করছেন। আমরা সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করব। ’

বক্তারা বলেন, ‘আমাদের সভাপতির মূল লক্ষ্য, সত্ভাবে ব্যবসা করা। যেন কোনো গ্রাহক আমাদের থেকে প্রতারিত না হয়। গ্রাহক সন্তুষ্টির মাধ্যমে আমরা আরো অনেক দূর এগিয়ে যাব। ’

অনুষ্ঠান শেষে বাজুসের সভাপতির পক্ষে সম্মাননা স্মারক গ্রহণ করেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের বিজনেস এডিটির রুহুল আমিন রাসেল।

 



সাতদিনের সেরা