kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১১২ মহররম ১৪৪৪

কালভার্টের মুখ বন্ধ করে মাছ চাষ

রাজবাড়ীতে পানিবন্দি ২৫ পরিবার

♦ অর্ধশত একর কৃষিজমি অনাবাদি
♦ তলিয়ে গেছে চলাচলের পথ
♦ সমস্যার সমাধান চান স্থানীয়রা
♦ দ্রুততার সঙ্গে এই সমস্যার সমাধান করা হবে -মার্জিয়া সুলতানা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, রাজবাড়ী সদর

রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

১৪ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজবাড়ীতে মাছ চাষ করার জন্য কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেওয়ায় পানি বের হওয়ার সব রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এক বছরের বেশি সময় ধরে পানিবন্দি রয়েছে ২৫টি পরিবার। একই সঙ্গে অর্ধশত একর কৃষিজমি অনাবাদি হয়ে পড়ে আছে।

সদর উপজেলার বাণীবহ ইউনিয়নের বাণীবহ পশ্চিমপাড়া গ্রামে সরেজমিন দেখা যায়, এলাকার নালা-ডোবা সবই পানিতে ভরা। চলাচলের পথ তলিয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

কৃষিজমি পানির নিচে। এক বছরের বেশি সময় ধরে এমন দুর্ভোগ ২৫ পরিবারের। পরিবারগুলোর দাবি, এভাবে পানি থাকার কারণে বেড়েছে মশা-মাছি। পরিবারের কেউ অসুস্থ হলে তাদের চিকিৎসকের কাছে নিতে পারে না। আবার কৃষিপণ্যও বিক্রি করতে তাদের অনেক কষ্ট হয়। একই সঙ্গে অর্ধশত একর কৃষিজমি অনাবাদি পড়ে আছে বছরজুড়ে।

স্থানীয়রা জানায়, এসব জমিতে তিনটি ফসল হতো। পাট, ধান, পেঁয়াজ ছাড়াও বিভিন্ন শীতকালীন সবজির আবাদ চলত। পানিবন্দি থাকার কারণ হিসেবে তারা জানায়, পানি বের হওয়ার যে কালভার্ট ছিল সেটি স্থানীয় মাছ চাষি অমর পাল বন্ধ করে রেখেছেন। রাস্তার বিপরীত পাশে অমর পালের নিজের জমি। সেই জমিতে পুকুর কেটেছেন দেড় বছর আগে। পুকুরের চালা বেঁধে কালভার্টের মুখ বন্ধ করেছেন তিনি। জমে থাকা পানি বের হওয়ার কোনো পথ নেই।

অমর পাল এ বিষয়ে বলেন, ‘আমার জমির দিকে পানি যেত না। এ জন্য আমি পুকুর কেটেছি। আর পুকুরের চালা বাঁধার কারণে কালভার্টের মুখ বন্ধ হয়েছে। তবে পানি বের করতে গেলে আমার পুকুরে দুটি চালা কাটতে হবে। তার পরও পানি যাবে বলে মনে হয় না। ’

স্থানীয় ইউপি সদস্য আলী আকবর বলেন, ‘এই ২৫টি পরিবার খুবই কষ্টে আছে। তাদের বাড়ি থেকে বের হলেই পানি। একই সঙ্গে এলাকার ৫০ একরের বেশি জমিতে কোনো ফসল আজ এক বছর ধরে হয় না। ’

রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মার্জিয়া সুলতানা বলেন, ‘দ্রুতই আমি সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) প্রধান করে একটি কমিটি করে দেব, যাতে খুবই দ্রুততার সঙ্গে এই সমস্যার সমাধান করা যায়। ’

 



সাতদিনের সেরা