kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জুন ২০২২ । ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৯ জিলকদ ১৪৪৩

পৌষের দাপটে কাঁপছে পঞ্চগড় বিপাকে পাথর শ্রমিকরা

পঞ্চগড় প্রতিনিধি   

৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পৌষের দাপটে কাঁপছে পঞ্চগড় বিপাকে পাথর শ্রমিকরা

প্রচণ্ড শীতে আগুন পোহাচ্ছেন লোকজন। ছবি : কালের কণ্ঠ

পৌষের দাপটে কাঁপছে উত্তরের জেলা পঞ্চগড়। ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডা বাতাসে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে। শীতের তীব্রতা বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন পঞ্চগড়ের প্রায় ২০ হাজার পাথর শ্রমিক। নদীর বরফশীতল জলে নেমে পাথর তুলতে পারছেন না তাঁরা।

বিজ্ঞাপন

তাই দিন এনে দিন খাওয়া এই শ্রমিকরা চরম সংকটে পড়েছেন।

পঞ্চগড় পৌরসভার নিমনগর এলাকার পাথর শ্রমিক মানিক হোসেন। বাড়ির পাশের করতোয়া নদীর পানি থেকে নুড়ি পাথর সংগ্রহ করে জীবিকা নির্বাহ করেন তিনি। শীতের তীব্রতা আঘাত করেছে তাঁর জীবিকায়। বরফের মতো ঠাণ্ডা পানিতে নেমে পাথর তুলতে হয়, কিন্তু এখন তীব্র শীতের কারণে তা করতে পারছেন না তিনি। যেদিন সূর্যের তেজ একটু বেশি থাকে সেদিন নদীতে নামতে পারেন। তাও কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পানি থেকে উঠে পড়তে হয়। আর অন্যদিনগুলো বসেই থাকতে হয়। শুধু মানিক নয়, এই অবস্থা পঞ্চগড়ের প্রায় ২০ হাজার পাথর শ্রমিকের। যুগ যুগ ধরে পাথর তুলে জীবিকা নির্বাহ করে আসা শ্রমিকদের দুর্ভোগের ঋতু হলো শীতকাল। পৌষ-মাঘে তাঁদের এক প্রকার বসেই কাটাতে হয়। এই সময়ে তাঁরা পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন পার করেন। ধার দেনা করে চলে তাঁদের সংসার। সরকারি তেমন কোনো সহযোগিতাও জোটে না তাঁদের ভাগ্যে।

জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘পাথর শ্রমিকদের তালিকা করে তাঁদের মাঝে শীতবস্ত্র ও ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। তাঁদের তালিকা সংগ্রহের কাজ চলছে। এর পাশাপাশি তাঁদের জন্য এই কয়েক মাসে বিকল্প কর্মসংস্থানের পথও খোঁজা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত জেলার পাঁচ উপজেলায় ৩৩ হাজার শীতবস্ত্র আমরা দিয়েছি। ’



সাতদিনের সেরা