kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অন্তর্ভুক্তিতে চাই সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অন্তর্ভুক্তিতে চাই সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন

প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার ও অন্তর্ভুক্তি টেকসই উন্নয়ন অর্জনের একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রয়োজন সমাজে বিদ্যমান নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন, আর এ ক্ষেত্রে দরকার সরকারি-বেসরকারি সংস্থার পাশাপাশি সবার সমন্বিত উদ্যোগ। গতকাল মঙ্গলবার ব্র্যাক আয়োজিত এক ওয়েবিনারে বক্তারা এই অভিমত ব্যক্ত করেন।

আগামী ৩ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি দিবস সামনে রেখে এই আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহফুজা আক্তার।

বিজ্ঞাপন

বিশেষ অতিথি ছিলেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলাম। আলোচক হিসেবে ছিলেন ব্র্যাকের  নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ, এডিডি ইন্টারন্যাশনালের কান্ট্রি ডিরেক্টর শফিকুল ইসলাম, সিআরপির প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি টেইলর, ব্র্যাকের পরিচালক মোর্শেদা চৌধুরী ও মারিয়া হক। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ব্র্যাকের হেড অব মিডিয়া অ্যান্ড এক্সটার্নাল রিলেশন্স রাফে সাদনান আদেল।

আয়োজকরা জানান, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০ ভাগের ১ ভাগই শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধী। এদের বেশির ভাগই আর্থ-সামাজিক কারণে মূলধারার উন্নয়ন কার্যক্রম থেকে বিচ্ছিন্ন। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সমাজের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে অন্তর্ভুক্তকরণ এবং তাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ নির্মাণে প্রয়োজন প্রতিবন্ধীবান্ধব নীতিমালা প্রণয়ন ও এর দ্রুত বাস্তবায়ন। এ ক্ষেত্রে সবার সমন্বিত উদ্যোগের বিকল্প নেই।  

ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘আমাদের কিছু সামাজিক ভাবনা-চিন্তা আছে, যেমন : প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা বিশেষ কিছু করতে পারবে না, বা তাদের উচ্চমাত্রার কাজ দেওয়া যাবে না—এমন ধারণা ভাঙতে হবে, যাতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির উন্নয়নের উদ্যোগগুলো হয় উদাহরণমূলক। ’ সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী হিসেবে তারা সমান অধিকার পাচ্ছে কি না এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অন্তর্ভুক্তিকরণ হচ্ছে কি না, তা নিয়ে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের বড় জায়গা রয়েছে বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার ও সুযোগ নিশ্চিত করতে সরকার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ জানিয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহফুজা আক্তার বলেন, ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বোঝাতে হবে যে তিনি সম্ভাবনা এবং তিনিই সফলতা এবং এ জন্য দরকার মনোভাবের পরিবর্তন। সরকার প্রতিবন্ধী ব্যক্তির জন্য আইন করেছে, বিধি করেছে, নীতিমালা করেছে এবং জেলা ও উপজেলায় বিভিন্ন কমিটি করেছে। তবে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির উন্নয়ন এককভাবে সম্ভব নয়। এখানে প্রয়োজন সরকারি ও বেসরকারি খাতের সমন্বিত প্রয়াস। ’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে কর্মে নিয়োগ দিতে হবে, নেতৃত্ব দিতে হবে, তাঁর নেতৃত্ব বিকাশে সহায়তা করতে হবে এবং তিনি যাতে প্রতি ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারেন, সে জন্য সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। ’



সাতদিনের সেরা