kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

দাওয়াই

বাথরুমের বদ-অভ্যাসগুলো ত্যাগ করুন

২৬ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাথরুমের বদ-অভ্যাসগুলো ত্যাগ করুন

শৌচাগার বা বাথরুমে প্রচুর রোগ-জীবাণু থাকে, যা সংক্রমণ ছড়ায়। বিশেষ করে স্ট্রেপটোকক্কাস, স্ট্যাফিলোকক্কাস, ইকোলাই এবং শিগেলা ব্যাকটেরিয়া থেকে শুরু করে হেপাটাইটিস এ ভাইরাস, বাথরুমের কোণে লুকিয়ে থাকা সাধারণ ঠাণ্ডা ভাইরাস অন্ত্রের সংক্রমণ, ফুসফুসের সংক্রমণ এবং ভাইরাল সংক্রমণের কারণ হতে পারে। বাথরুম ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমাদের কিছু ভুল আচরণ বা বদ-অভ্যাস রয়েছে, যাতে স্বাস্থ্যঝুঁকির সৃষ্টি হতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিষ্কার বাথরুমেও এই ভুলগুলো করলে যে কেউ আক্রান্ত হতে পারেন ভয়ংকর কোনো রোগে।

বিজ্ঞাপন

তাই প্রত্যেকেরই উচিত বদ-অভ্যাসগুলো এড়িয়ে ভালো কিছু নিয়ম মেনে চলা।

 

কমোডের ঢাকনা খোলা রেখে ফ্লাশ নয়

আমেরিকান জার্নাল অফ ইনফেকশন কন্ট্রোলের মতে, কমোডের ঢাকনা খোলা রেখে ফ্লাশ করার চেয়ে বেশি বদ-অভ্যাস আর কিছুই হতে পারে না। কারণ ঢাকনা বন্ধ না করে ফ্লাশ করার অর্থ জীবাণুকে চারদিকে ছড়িয়ে পড়তে সাহায্য করা। পানি ফ্লাশ করার সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাসের দখলে চলে আসতে পারে পুরো বাথরুম। তাই এই অভ্যাস আজই বদলান।

 

টুথব্রাশ রাখবেন না

দাঁতের যত্নে সবাই সচেতন। অথচ বাথরুমের ভেতর অনেকে টুথব্রাশ রাখেন, কিন্তু টয়লেটের চার ফুট দূরত্বে টুথব্রাশ থাকা উচিত। কারণ টয়লেটের ভেতর জলীয় বাষ্পের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। ফলে টুথব্রাশে ব্যাকটেরিয়ার বাসা বাঁধার আশঙ্কাও বাড়ে। ব্রাশে ঢাকনা পরিয়ে রাখলেও জীবাণুর বংশবৃদ্ধির আশঙ্কা বাড়ে। টুথব্রাশ শুকনা রাখা উচিত।

 

ভেজা ও স্যাঁতসেঁতে তোয়ালে নয়

যাঁরা বাথরুমে ভেজা, স্যাঁতসেঁতে, একই তোয়ালে বারবার ব্যবহার করেন—তাঁদের রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, বাথরুমে হুকের ওপর ভেজা তোয়ালে ঝুলিয়ে রাখলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। এ ধরনের তোয়ালে বাথরুমে ছড়িয়ে পড়া সংক্রামক ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক, ভাইরাসের মতো মাইক্রোস্কোপিক জীবাণুর প্রজননস্থল।

 

এগজস্ট ফ্যান চালু করে নিন

কোনো কোনো বাথরুমে এগজস্ট ফ্যান থাকলেও অনেকে চালু করতে ভুলে যান। এগজস্ট ফ্যান বাথরুমে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া এবং জীবাণু দূর করতে বেশ ভূমিকা রাখে। তাই আজ থেকে এগজস্ট ফ্যান চালু করার অভ্যাস তৈরি করে নিন।

 

মেঝেতে খালি পায়ে হাঁটা নয়

অনেকে খালি পায়ে বাথরুম ব্যবহার করেন, যা মোটেও উচিত নয়। একজোড়া জুতা বা স্যান্ডেল নখে ছত্রাকের সংক্রমণ রোধসহ নানা সংক্রমণ এড়াতে সাহায্য করতে পারে।

 

টয়লেটে বসে সেলফোন ব্যবহার নয়

অনেকেই টয়লেটের কমোডে বসে ফেসবুক, গুগল বা ইউটিউবে সময় কাটান। এটা কখনোই করা উচিত নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাথরুমের পরিবেশে দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে ব্যাকটেরিয়া। ঠিকভাবে হাত না ধুয়ে কমোডের পাশে রাখা ফোন ধরলে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সালমোনেলা, ই কোলাই, সিগেলা এবং ক্যামফাইলোব্যাকটরের মতো ব্যাকটেরিয়াগুলো। এ ছাড়া অন থাকা এবং ক্রমাগত ব্যবহারের ফলে সেলফোনটিতে এমনিতেই বেশি তাপমাত্রা থাকে, যা ব্যাকটেরিয়ার বংশ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। সেলফোনের রাবারের তৈরি কাভারে বাসা বাঁধে বহু ক্ষতিকর ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া। বাথরুমের ফ্লাশ, কল বা দরজার লক ব্যবহারের পর সেলফোনের স্ক্রিনে হাত দিলে সেখানেও জন্মাতে পারে সালমোনেলার মতো ভয়ংকর ব্যাকটেরিয়া।

 

বই বা পত্রিকা রাখবেন না

বাথরুমে বই ও ম্যাগাজিন রাখার অভ্যাস অনেকেরই। কিন্তু এটা জানা উচিত যে কাগজ পানির কণা শুষে নিতে পারে সহজেই। তা ছাড়া স্যাঁতসেঁতে বই বা ম্যাগাজিনের পাতায় ছত্রাক জন্মানোর জন্য উপযুক্ত পরিবেশ। তাই শৌচাগারে বই পড়ার অভ্যাস থাকলে, বাথরুমের বাইরে বই রাখার তাক বানিয়ে নেওয়াই ভালো।

 

সূত্র : এইসময়ডটকম



সাতদিনের সেরা