kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৩০ আসনও পাবে না আ. লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৩০ আসনও পাবে না আ. লীগ

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের কোনো জনসমর্থন নেই। তারা রাজনৈতিকভাবে সম্পূর্ণ দেউলিয়া। তারা জানে, যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, তাহলে ৩০টি আসনও পাবে না। এ কারণে তারা বিচার বিভাগ, প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী, এমনকি দুর্ভাগ্যজনকভাবে কষ্ট হয় বলতে গণমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছে। ফলে আজকে গোটা জাতি কথা বলতে পারছে না, মতামত দিতে পারছে না।

গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপির উদ্যোগে ‘১ অক্টোবর ২০০১ : নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সর্বশেষ নির্বাচন’ শীর্ষক আলোচনাসভায় ফখরুল এ কথা বলেন। দ্বাদশ সংশোধনী অনুযায়ী বিচারপতি লতিফুর রহমানের নেতৃত্বে সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ২০০১ সালের ১ অক্টোবরের নির্বাচনে বিএনপির সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ের পর খালেদা জিয়া সরকার গঠন করেছিলেন। ফখরুল বলেন, ‘আজকে আওয়ামী লীগ এখন আবার চেষ্টা করছে ওই ধরনের একটি নির্বাচন করে ক্ষমতায় আসার, যে নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে না। প্রধান নির্বাচন কমিশনার হুদা নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। কয়েক দিন আগে তিনি রাশিয়ায় গিয়ে নির্বাচনপদ্ধতি দেখে এসেছেন। ওটা দেখে এসেছেন, উনি দিনের বেলা কিভাবে ভোট চুরি করা যায়, সেটা শিখে এসেছেন। এই চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র, বাংলাদেশের মানুষের ভোটের অধিকার হরণ করার ভয়াবহ যে প্রচেষ্টা—এটা আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।’ ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন, সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ আইনসহ ভয়ংকর সব আইন করে জনগণের কথা বলার অধিকারকে সরকার পায়ের তলায় দাবিয়ে রেখেছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির মহাসচিব। ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন নির্বাচন খেলা আর হবে না। নির্বাচন হতে হলে অবশ্যই একটি নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে।’



সাতদিনের সেরা