kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পরিকল্পনামন্ত্রী বললেন

বঙ্গোপসাগরে প্লাস্টিক বর্জ্যের বেশির ভাগই অন্য দেশের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩১ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্লাস্টিক একটি বৈশ্বিক ইস্যু উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘আগে আমি ভাবতাম যে বঙ্গোপসাগরে শুধু আমাদের প্লাস্টিক বর্জ্য জমা হয়। কিন্তু আজকের আলোচনা শুনে জানলাম, এই সাগরে আমাদের তুলনায় পাশের দেশগুলো থেকে আসে ১০ গুণ বেশি বর্জ্য।’

গতকাল রবিবার বাংলাদেশ একাডেমিক অব সায়েন্স এবং অ্যাসোসিয়েশন অব একাডেমিক অ্যান্ড সোসাইটি অব এশিয়া আয়োজিত এক ওয়েবিনারে তিনি এই কথা বলেন।

এম এ মান্নান বলেন, ‘বিদেশেও প্লাস্টিকের ব্যবহার আছে। তবে তাদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সিস্টেম আছে, আমাদের তা নেই। আমরা যেখানে-সেখানে প্লাস্টিক ফেলে দিই। আমাদের শহরের ড্রেনগুলো প্লাস্টিকে ভরে যাচ্ছে। সাগরের তলদেশে প্লাস্টিকে ভরে যাচ্ছে। মাছের পেটে প্লাস্টিক পাওয়া যাচ্ছে।’

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের কাছে প্রস্তাব আসে, এটা-সেটা চায়, আমরা অনুমোদন দিই। কিন্তু পরে আর কাজ হয় না। এটা নিয়েও আমাদের সরকারপ্রধানও বিরক্ত। তিনি বলেন, তোমরা তো প্রায়ই বলো, বর্জ্য দিয়ে বিদ্যুৎ বানাবা; কিন্তু বিদ্যুৎ কোথায়? ১০০ কোটি লাগবে? তা-ই দেব। তোমরা নারায়ণগঞ্জ, রাজশাহী, সিলেটে একটি করে বানিয়ে দেখাও যে তোমরা পারো।’ এ সময় মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আপনাদের সঙ্গে কাজ করতে চাই।’

সংক্ষিপ্ত আলোচনায় ওয়েবিনারের অর্গানাইজিং সেক্রেটারি অধ্যাপক ড. লিয়াকত আলী বলেন, প্লাস্টিকদূষণ একটি ভয়াবহ বিষয়, যেটি মানুষের শারীরিক ক্ষতির পাশাপাশি আবহাওয়ারও ব্যাপক ক্ষতি করে। শুধু এশিয়ায় ৫১ শতাংশ প্লাস্টিক উৎপাদিত হয়, যা পরিবেশদূষণে বড় ভমিকা রাখছে। সারা বিশ্বে প্রতিদিন তিন হাজার টন প্লাস্টিকের বর্জ্য উৎপাদিত হয়, এর মধ্যে বাংলাদেশে উৎপাদিত হয় শতকরা ৮ শতাংশ, যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে।



সাতদিনের সেরা