kalerkantho

রবিবার । ২৬ বৈশাখ ১৪২৮। ৯ মে ২০২১। ২৬ রমজান ১৪৪২

এলএমজি পোস্ট বসছে ঝুঁকিপূর্ণ সব থানায়

পরবর্তী নির্দেশনা পর্যন্ত সারা দেশে সতর্ক অবস্থানে থাকবে পুলিশ

এস এম আজাদ   

১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



এলএমজি পোস্ট বসছে ঝুঁকিপূর্ণ সব থানায়

ঢাকা মহানগরের মতিঝিল ও ওয়ারী বিভাগের সাতটি থানায় গতকাল থেকে বসানো হয়েছে এলএমজি পোস্ট। ছবি : কালের কণ্ঠ

হেফাজতে ইসলামের কর্মসূচির সময় তাণ্ডব, পুলিশের স্থাপনায় হামলা এবং গুজব ছড়িয়ে একই কায়দায় হামলার ঘটনার জের ধরে সারা দেশে পুলিশকে সতর্ক অবস্থানে থাকতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশনায় সতর্ক নজরদারির পাশাপাশি থানা ও ফাঁড়িতে লাইট মেশিনগান (এলএমজি) ও চায়নিজ রাইফেলসংবলিত পোস্ট বসানো হচ্ছে। বালুর বস্তা দিয়ে তৈরি চৌকিতে সর্বদা প্রস্তুত রাখা হচ্ছে পুলিশ সদস্যদের। প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সিলেট, ফরিদপুর ও নারায়ণগঞ্জে এ ধরনের পোস্ট দেখা গেলেও চলতি সপ্তাহে তা আরো বাড়ানো হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা মহানগরের দক্ষিণাঞ্চলের ১৪ থানা, রংপুর ও রাজশাহী মহানগরের থানাগুলোতে বসানো হয়েছে এলএমজি পোস্ট। যেসব থানা বা স্থাপনাকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করা হবে সেগুলোতেই পোস্ট বসিয়ে এলএমজিসহ পাহারা দেবে পুলিশ। এ কারণে এলএমজি পোস্টের সংখ্যা ক্রমেই বাড়তে পারে। কোনোভাবেই পুলিশের স্থাপনায় হামলা চালাতে দেওয়া হবে না বলে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এলএমজি পোস্ট না বসানো হলেও চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বগুড়া, সাতক্ষীরা, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, বরিশাল, নরসিংদী, কুমিল্লাসহ বেশ কিছু এলাকায় তল্লাশি পোস্ট আছে। সারা দেশের থানাগুলোতেই বাড়তি নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত সতর্ক অবস্থা চলতে থাকবে।

থানার নিরাপত্তা জোরদারের বিষয়ে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনকেন্দ্রিক থানাগুলোর নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে ও অস্ত্রের নিরাপত্তায় এই ব্যবস্থা কার্যকর করা হয়েছে।’

পুলিশের সূত্র জানায়, গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতে ইসলামের বিভিন্ন ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি ও সহিংসতার ঘটনার পর বিভিন্ন থানা, ফাঁড়িসহ অন্যান্য পুলিশ স্থাপনায় ব্যাপক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। পুলিশ সুপার কার্যালয়সহ সব থানা ভবন, পুলিশ ফাঁড়িতে ও ক্যাম্পে ২৭টি এলএমজি চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন (অপরাধ ও প্রশাসন) বলেন, এসব নিরাপত্তা চেকপোস্টে ভারী অস্ত্র সরবরাহ করা হয়েছে।’

একই সময় ফরিদপুরের সালথায় গুজব ছড়িয়ে হামলার ঘটনায়ও সতর্ক অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। সব থানায় বসানো হয়েছে এলএমজি পোস্ট। হেফাজতের নাশকতার কারণে সিলেট মহানগরেও বসানো হয়েছে এমন তল্লাশি চৌকি। সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (ডিবি ও গণমাধ্যম) বি এম আশরাফ উল্যাহ তাহের জানান, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রতিটি স্থাপনার সামনে বালুর বস্তা দিয়ে বাংকার তৈরি করে এলএমজি পোস্ট বসানো হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সাতটি থানায় এই ধরনের পোস্ট বসিয়ে সতর্ক অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ব্যাপক নাশকতার কারণেও নজরদারি জোরদার করা হয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম। রংপুর মহানগরের সব কটি থানায় রবিবার থেকে বসানো হয়েছে এলএমজি পোস্ট। রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র উপকমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, থানার নিরাপত্তায় বিশেষ পোস্ট বসানো হয়েছে।

ঢাকা মহানগরের মতিঝিল ও ওয়ারী বিভাগের সাতটি থানায়ও রবিবার থেকে বসানো হয়েছে একই ধরনের পোস্ট। মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, মতিঝিল বিভাগের মতিঝিল থানা, সবুজবাগ থানা, খিলগাঁও থানা, পল্টন মডেল থানা, রামপুরা থানা, মুগদা থানা ও শাহজাহানপুর থানায় বালুর বস্তা দিয়ে চৌকি তৈরি করে সেখানে এলএমজি ও চায়নিজ রাইফেল দিয়ে পুলিশ সদস্যদের ডিউটিতে নিয়োজিত রাখা হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি ও থানার বাড়তি নিরাপত্তায় কয়েক দিন আগেই থানাগুলোতে ভারী অস্ত্র বসানো হয়েছে। পুলিশ সদস্যদের দিয়ে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে বিভিন্ন পয়েন্টে। পুলিশ সদর দপ্তর সূত্র জানায়, গত সপ্তাহেই নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। কোনোভাবেই পুলিশের স্থাপনার ওপর হামলা চালাতে দেওয়া হবে না। প্রথমে কর্মসূচিতে নাশকতায় নমনীয় অবস্থায় থাকলেও এখন কঠোর অবস্থানে যাবে পুলিশ।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষের জীবন ও সম্পত্তির ওপর বর্বরোচিতভাবে হামলা আমরা দেখেছি। থানা, ফাঁড়িসহ সরকারি স্থাপনার ওপরও চালানো হয়েছে ধ্বংসযজ্ঞ। এ ধরনের যেকোনো সহিংসতার পুনরাবৃত্তি রোধে পুলিশ অধিকতর সতর্ক রয়েছে। এর অংশ হিসেবে থানাসহ পুলিশ স্থাপনাগুলোর নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।’



সাতদিনের সেরা