kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্স

সরকারের অব্যবস্থাপনায় ‘লকডাউন’ অকার্যকর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিএনপি দপ্তরের চলতি দায়িত্বে থাকা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স বলেছেন, সরকারি অব্যবস্থাপনায় লকডাউন বা নিষেধাজ্ঞা কোনোটাই মাঠ পর্যায়ে কার্যকর হচ্ছে না। বরং তাদের পরস্পরবিরোধী পদক্ষেপে মানুষ করোনা ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে। সর্বত্র লেজেগোবরে অবস্থা। জনগণ নানা দুর্ভোগে পড়েছে। লকডাউন বা নিষেধাজ্ঞা কোনোটাই যে কার্যকর হচ্ছে না তার প্রমাণ সড়ক-মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট। শহরের বিভিন্ন স্থানে পরিবহনের জন্য মানুষের দীর্ঘ লাইন, দীর্ঘ অপেক্ষা। মূলত সব কিছুই চলছে আগের মতোই।

গতকাল বুধবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্স এ কথা বলেন।

প্রিন্স আরো বলেন, যাঁরা এসি রুমের মধ্যে বসে বা সরকারি অফিসে বসে এসব সিদ্ধান্ত (লকডাউন) দেন, তাঁদের বেতন-ভাতা নিয়ে চিন্তা করতে হয় না, তাঁদের মাস কিভাবে চলবে সেটা নিয়ে চিন্তা করতে হয় না, তাঁদের পানির বিল, বিদ্যুৎ বা গ্যাসের বিল কিভাবে দিতে হবে সেটা নিয়ে চিন্তা করতে হয় না। তাঁদের এই অপরিকল্পিত ও প্রস্তুতিহীন পদক্ষেপের ফলে বিপাকে পড়তে হয় জনগণকেই। করোনার দ্বিতীয় টেউ মোকাবেলায় গত বছরের মতোই সরকারের পদক্ষেপ সমন্বয়হীন, অপরিকল্পিত, অদূরদর্শী ও কাণ্ডজ্ঞানহীন। এবার সরকার অনেক সময় হাতে পেলেও পূর্বপ্রস্তুতি না থাকায় গতবারের মতোই হ-য-ব-র-ল অবস্থা।

প্রিন্স বলেন, বাংলাদেশে সংক্রমণের হার রকেটগতিতে বেড়েই চলেছে। হাসপাতালগুলোর অবস্থা বেগতিক। ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা শহরে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল করোনা রোগীতে পরিপূর্ণ। সিট নেই, পর্যাপ্ত আইসিইউ, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন নেই। এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটতে ছুটতে পথের মধ্যেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে মানুষ। এর দায় সরকারকেই বহন করতে হবে।

হাসপাতালগুলোয় পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন নিশ্চিত এবং সরকারি খরচে পর্যাপ্ত করোনা টেস্টের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান প্রিন্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা