kalerkantho

রবিবার । ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮। ১ আগস্ট ২০২১। ২১ জিলহজ ১৪৪২

মসজিদে নামাজ পড়া নিয়ে ১০ নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে মসজিদে নামাজ আদায়ে ১০টি নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। গতকাল সোমবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়। মসজিদে জামাতে নামাজ আদায়ে মুসল্লিসংখ্যা বেঁধে না দিলেও কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। আর আসছে রমজানে মসজিদে ইফতার বা সাহরির আয়োজন করতে নিষেধ করা হয়েছে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৪ বা ১৫ এপ্রিল রমজান মাস শুরু হবে। তবে যাঁরা ইতিকাফে বসবেন তাঁদের ইফতার ও সাহরি মসজিদে খেতে বাধা নেই। ১০ দফা নির্দেশনায় অবশ্য এ বিষয়টি উল্লেখ করা হয়নি। বলা হয়নি তারাবি নামাজের বিষয়েও।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, রমজান মাস শুরুর আগেই তারাবিসহ আরো কিছু বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হবে। গতকালের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মসজিদে প্রবেশপথে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে, সবাইকে মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। প্রত্যেককে বাসা থেকে অজু করে ও সুন্নত নামাজ ঘরে আদায় করে মসজিদে আসতে হবে, অজু করার সময় অন্তত ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের আগে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে, মুসল্লিদের নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে। কাতারে নামাজে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। শিশু, বয়োবৃদ্ধ, যেকোনো অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি জামাতে অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত থাকবেন।

সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতে মসজিদের অজুখানায় সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। করোনাভাইরাস মহামারি থেকে রক্ষা পেতে নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে খতিব ও ইমামরা দোয়া করবেন। খতিব, ইমাম ও মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলোর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবে।



সাতদিনের সেরা