kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ মাঘ ১৪২৭। ২১ জানুয়ারি ২০২১। ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

দ্বিতীয় ধাপে ৬১ পৌরসভায় ভোট ১৬ জানুয়ারি

চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন চলতি ডিসেম্বরেই!

বিশেষ প্রতিনিধি   

৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দ্বিতীয় দফায় দেশের আরো ৬১ পৌরসভায় ভোটের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী ১৬ জানুয়ারি এসব পৌরসভায় ভোটগ্রহণ হবে। এ ছাড়া ৩০ জানুয়ারি তৃতীয় ও ১৩ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ ধাপের ভোটগ্রহণের প্রাথমিক পরিকল্পনা রয়েছে ইসি সচিবালয়ের।

গতকাল বুধবার কমিশন সভা শেষে ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর দ্বিতীয় ধাপে ৬১টি পৌরসভার তফসিল ঘোষণা করেন। তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২০ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২২ ডিসেম্বর ও প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ ডিসেম্বর। ৬১টি পৌরসভার মধ্যে ২৯টিতে ইভিএম এবং ৩২টিতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোট হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব জানান, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে (চসিক) ভোটগ্রহণের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন প্রাথমিক পর্যায়ে আলোচনা করেছে। এই নির্বাচনের জন্য তফসিল নির্ধারণের প্রয়োজন নেই। শুধু ভোটের তারিখ ঘোষণা হবে। এ ক্ষেত্রে চলতি ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে ভোট হতে পারে।

চসিক নির্বাচনের বিষয়ে ইসির সিনিয়র সচিব আরো বলেন, ‘সেখানে ১৮০ দিন মেয়াদে প্রশাসক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যেই নির্বাচন করতে হবে। আমরা ডিসেম্বরের শেষ দিকে এই ভোট করার প্রস্তুতি নিয়েছি। এ বিষয়ে কমিশন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।’

ইসি সচিবালয় সূত্র জানায়, ভোটার তালিকা থেকে শুরু করে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। নির্বাচনে কারা দায়িত্ব পালন করবেন, সে তালিকাও প্রস্তুত। যেকোনো সময় ভোটগ্রহণের তারিখ ঘোষণা করা হবে।

এদিকে করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই এবার চার ধাপে পৌরসভা নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। প্রথম ধাপে ২৮ ডিসেম্বর ২৫টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ হতে যাচ্ছে।

স্থানীয় সরকার আইন সংশোধনের পর ২০১৫ সালে প্রথম মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে এক দিনে ভোট হয় ২৩৪টি পৌরসভায়। সেবার ২০টি দল ভোটে অংশ নেয়। এবারও মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে। তবে তা একাধিক দিনে। আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ বড় দলগুলো এই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।

দ্বিতীয় দফায় যে ২৯ পৌরসভায় ইভিএমে ভোট হবে, সেগুলো হলো সিরাজগঞ্জের কাজীপুর, নারায়ণগঞ্জের তারাব, মাগুরা, ঢাকার সাভার, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ, নওগাঁর নজিপুর, পাবনার ফরিদপুর, রাজশাহীর কাঁকনহাট, কুষ্টিয়ার কুমারখালী, বগুড়ার সারিয়াকান্দি, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর, পিরোজপুর, নেত্রকোনার কেন্দুয়া, মেহেরপুরের গাংনী, ঝিনাইদহের শৈলকূপা, খাগড়াছড়ি, নীলফামারীর সৈয়দপুর, রাজশাহীর আড়ানী, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী, কুমিল্লার চান্দিনা, ফেনীর দাগনভূঞা, কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর, বগুড়ার সান্তাহার, নোয়াখালীর বসুরহাট ও বাগেরহাটের মোংলা পোর্ট।

আর ৩২টি পৌরসভায় সাধারণ ব্যালটে ভোট হবে। সেগুলো হচ্ছে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ, কুষ্টিয়া, মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, কুষ্টিয়ার মিরপুর ও ভেড়ামারা, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, দিনাজপুর, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ, গাইবান্ধা, দিনাজপুরের বিরামপুর, পাবনার ভাঙ্গুড়া, সাঁথিয়া, সুজানগর ও ঈশ্বরদী, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জের মাধবপুর ও নবীগঞ্জ, ফরিদপুরের বোয়ালমারী, বগুড়ার শেরপুর, রাজশাহীর ভবানীগঞ্জ, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া, সিরাজগঞ্জ, রায়গঞ্জ ও বেলকুচি, সুনামগঞ্জের ছাতক, নাটোরের গোপালপুর, বান্দরবানের লামা, নাটোরের গুরুদাসপুর, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা