kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

৯ নম্বরে ধরা ‘বিয়ে’ প্রতারক

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৯ নম্বরে ধরা ‘বিয়ে’ প্রতারক

বয়স মাত্র ২৯ বছর। এরই মধ্যে সিদ্ধহস্ত হয়ে উঠেছেন ব্যতিক্রমধর্মী প্রতারণায়। বিয়ের মাধ্যমে প্রতারণা হয়ে উঠেছে তাঁর পেশা। একে একে বিয়ে করেছেন ৯টি। তবে শেষরক্ষা হয়নি। ৯ নম্বরে এসে পাকড়াও হয়েছেন পুলিশের জালে। শেষ পর্যন্ত ঠিকানা হয়েছে শ্রীঘর। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ও পাহাড়তলী থানার পুলিশ যৌথভাবে গত শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ সোলাইমান। গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলায়। থাকেন পাহাড়তলী এলাকার একটি ভাড়া বাসায়। সেই বাসা থেকে নবম স্ত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (বন্দর) আবু বকর সিদ্দিক বলেন, পেশায় গার্মেন্ট শ্রমিক সোলাইমান বেতন পান আট হাজার টাকা। তিনি প্রতারণার কৌশল হিসেবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অল্প বয়সী মেয়ের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক তৈরি করেন। নিজেকে কখনো সরকারি প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে, কখনো পুলিশ, কখনো আর্মি কিংবা নৌবাহিনীর অফিসার পরিচয় দেন। শুধু তা-ই নয়, নিজের ছবি সম্পাদনা করে এমনভাবে উপস্থাপন করেন যাতে দেখা যায়, তিনি সরকারি কোনো অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এসব ছবি মেয়েদের কাছে পাঠিয়ে সম্পর্কের ভিত মজবুত করেন। এরপর করেন বিয়ে। বিয়ের পর শ্বশুরবাড়ির লোকজন তথা বউয়ের ভাই-বোনকে চাকরি দেওয়ার নাম করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেন। পাশাপাশি স্ত্রীদের নামে এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে পালিয়ে যান। এভাবে এক স্ত্রীর কাছ থেকে পালিয়ে অন্য জায়গায় চলে যান। সেখানে গিয়ে একই কায়দায় অন্য মেয়েকে বিয়ে করেন। এভাবেই আটটি বিয়ে করেছেন সোলাইমান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা