kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

টিএসসির শিশু জিনিয়া পাঁচ দিন পর উদ্ধার

অপহরণকারী নারী রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টিএসসির শিশু জিনিয়া পাঁচ দিন পর উদ্ধার

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকায় হেঁটে হেঁটে ফুল বিক্রি করে সবার পরিচিত মুখ হয়ে ওঠা ৯ বছরের শিশু জিনিয়া উদ্ধার হয়েছে। অপহরণের পাঁচ দিন পর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) গত সোমবার রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার আমতলা থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় নূর নাজমা আক্তার লোপা তালুকদার (৪২) নামের এক নারী গ্রেপ্তার হয়েছেন।

গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসির আদালত লোপার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর হাকিম ইলিয়াস মিয়ার আদালত জিনিয়াকে তার মায়ের জিম্মায় দেন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, ভিকটিম শিশুটি ছোটবেলা থেকেই মা সেনুরা বেগমের সঙ্গে টিএসসিতে থাকত। সেনুরা বেগম গত ২ সেপ্টেম্বর জিনিয়া নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির সূত্রে গোয়েন্দা রমনা বিভাগ ছায়াতদন্ত শুরু করে। প্রাথমিক তদন্ত ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য মতে জানা যায়, দুই নারী জিনিয়াকে ফুচকা খাওয়ান এবং টিএসসি এলাকায় তাকে নিয়ে ঘোরাফেরা করেন। একপর্যায়ে ফুঁসলিয়ে অপহরণ করেন। এ ঘটনায় গত সোমবার শাহবাগ থানায় অপহরণ মামলা হয়। মামলাটি ডিবির রমনা জোনাল টিম তদন্ত শুরু করে। পরে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় ফতুল্লা থানার আমতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে জিনিয়াকে উদ্ধার করা হয়। অপহরণের অভিযোগে লোপা তালুকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। অপহরণের উদ্দেশ্য ও নেপথ্যের কারণ জানতে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে লোপাকে আদালতে পাঠালে দুই দিন মঞ্জুর করা হয়।

ডিবির সূত্র জানায়, অসৎ কোনো উদ্দেশ্যেই শিশুটিকে অপহরণ করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ জন্য অপহরণের পর শিশুটির নাম পাল্টে ফেলা হয়। লোপার বিরুদ্ধে আরো অনেক অভিযোগ পাওয়া গেছে। সিনিয়র সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তিনি চাকরির তদবির ও প্রতারণা করতেন। পটুয়াখালীতে তাঁর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলাও রয়েছে।

মন্তব্য