kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

করোনা উপসর্গ

চার জেলায় আরো সাতজনের মৃত্যু

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নতুন করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) উপসর্গ নিয়ে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের কভিড-১৯ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৪ ঘণ্টায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে। একই উপসর্গ নিয়ে ফরিদপুরের বোয়ালমারী, যশোরের অভয়নগর ও বাগেরহাটের ফকিরহাটে মারা গেছেন ব্যবসায়ীসহ তিনজন। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

কুমিল্লা : গত শুক্রবার সকাল থেকে গতকাল শনিবার সকাল পর্যন্ত সময়ে মারা যাওয়া চারজন হলেন কুমিল্লা মহানগরের ঝাউতলা এলাকার রবিউল করিম (৬১), জেলার বরুড়া উপজেলার নাজির আহমেদ (৬০), দেবীদ্বার উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম (৬০) এবং ফেনী জেলার মাহবুবুর রহমান (৫৮)। তাঁদের মধ্যে তিনজন আইসিইউতে ও দুজন আইসোলেশন ওয়ার্ডে ছিলেন।

কুমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. সাজেদা খাতুন জানান, কভিড-১৯ ইউনিটে করোনার সংক্রমণ ও উপসর্গ নিয়ে ১১৮ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

ফরিদপুর : বোয়ালমারীর বড় কামারগ্রামের মৃত গোবিন্দ কুণ্ডুর একমাত্র ছেলে ও উপজেলার নিউ মার্কেটের প্রসাধনী ব্যবসায়ী গোপাল কুণ্ডু (৩৫) গতকাল বিকেলে মারা যান। গোপাল কয়েক দিন ধরে জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশিতে ভুগে বাড়িতেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। গতকাল দুপুরে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবার তাঁকে মাইক্রোবাসে করে ফরিদপুর নেওয়ার পথে কাদিরদী এলাকায় প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টে তাঁর মৃত্যু হয়। গত বৃহস্পতিবার তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা পরীক্ষার নমুনা দিয়েছিলেন।

বাগেরহাট : ফকিরহাট উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ আব্দুস সালাম (৫৫) গতকাল বিকেলে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

অভয়নগর : যশোরের অভয়নগরের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ইউনিটে জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট ও কিডনিজনিত রোগ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার রাতে আনোয়ারুল মোল্যা (৬৫) নামের এক ব্যক্তি মারা যান। তিনি খুলনার ফুলতলা উপজেলার যুগ্নিপাশা গ্রামের বাসিন্দা। করোনা ইউনিটের চিকিৎসক আলিমুর রাজিব জানান, শুক্রবার বিকেলে আনোয়ারুল মোল্যা হাসপাতালে ভর্তি হন। করোনার উপসর্গ থাকায় তাঁকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরিবার জানায়, আনোয়ারুল মোল্যা ১০ দিন আগে জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হলে বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শুক্রবার দুপুরে তাঁর শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়।

মন্তব্য