kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ আষাঢ় ১৪২৭। ৯ জুলাই ২০২০। ১৭ জিলকদ ১৪৪১

বন্দরনগরে আইসিইউ শয্যার জন্য হাহাকার!

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

৩১ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বন্দরনগরে আইসিইউ শয্যার জন্য হাহাকার!

চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগী গত শুক্রবার রাতে আড়াই হাজার ছাড়িয়েছে। স্বাভাবিকভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে কষ্ট হলে করোনারোগীদের ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন হয়। চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্তদের ৮০ শতাংশই নগরের। কিন্তু ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র এই বন্দরনগরে করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউতে মাত্র ১০টি শয্যা রয়েছে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে। তবে নগরের বেসরকারি ১৫টি হাসপাতালে শতাধিক আইসিইউ থাকলেও এখনো কোনো করোনা রোগীকে সেখানে ভর্তি করা যায়নি বলে জানা গেছে।

এর মধ্যে প্রায় দুই মাস আগে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির স্বাক্ষরিত এসংক্রান্ত এক চিঠিতে নগরের বেসরকারি ১২টি হাসপাতালের আইসিইউ প্রস্তুত করার পাশাপাশি আইসিইউ সুবিধা প্রদান করতে বলা হয়েছিল। এ চিঠিতে বলা হয়, চারটি পর্যায়ে মোট ১২টি বেসরকারি হাসপাতাল তাদের আইসিইউ সুবিধা প্রদান করবে। প্রথম পর্যায়ে পার্কভিউ হাসপাতাল, মেডিক্যাল সেন্টার এবং ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের আইসিইউ ব্যবহার করা হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে সার্জিস্কোপ লিমিটেড (ইউনিট ২), ডেল্টা হাসপাতাল এবং সিএসটিসি হাসপাতাল। তৃতীয় পর্যায়ে সিএসসিআর হাসপাতাল, ন্যাশনাল হাসপাতাল, এশিয়ান হাসপাতাল এবং চতুর্থ পর্যায়ে রয়েল হাসপাতাল, মেট্রোপলিটন হাসপাতাল ও ম্যাক্স হাসপাতালের আইসিইউ সুবিধা ব্যবহার করা হবে। গত ৪ এপ্রিল এ চিঠি দিলেও প্রায় দুই মাসেও তা কার্যকর করেনি নগরের ওই বেসরকারি হাসপাতালগুলো।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. আব্দুর রব বলেন, ‘আজকে (গতকাল) হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছে ১৩৯ জন। এর মধ্যে চার-পাঁচজনের আইসিইউ প্রয়োজন। কিন্তু ১০ শয্যার কোনোটি খালি নেই।’ আইসিইউর সংকটের বিষয়টি জানতে চাইলে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. শেখ ফজলে রাব্বী গতকাল শনিবার বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, চট্টগ্রামে প্রয়োজনের তুলনায় আইসিইউ শয্যা কম আছে।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউতে কর্তব্যরত সহযোগী অধ্যাপক ডা. হারুণ উর রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে ১২ শয্যার আইসিইউ রয়েছে। তবে এ আইসিইউতে করোনা রোগী ভর্তি করা হয় না। করোনার জন্য আলাদাভাবে আইসিইউ স্থাপন করা হয়েছে। আগামী দুই-এক দিনের মধ্যে চালু হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা