kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৬  মে ২০২০। ২ শাওয়াল ১৪৪১

এনএসইউর গবেষণা

দেশে আক্রান্তের ৩১ শতাংশ বিদেশফেরত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে আক্রান্তের ৩১ শতাংশ বিদেশফেরত

নভেল করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) গত ২৭ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশে সংক্রমিত ৪৮ জনের মধ্যে ১৫ জনই (৩১ শতাংশ) বিদেশফেরত। তাঁদের সংস্পর্শে আসা পরিবারের আরো ১৫ জন (৩১ শতাংশ) করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে। অন্যদিকে করোনা রোগীদের সংস্পর্শে সংক্রমিত হয়েছে আরো ১১ জন (২৩ শতাংশ)। সংক্রমিত অন্য আরো সাতজন কিভাবে আক্রান্ত হলো তা এখনো অজানা। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (এনএসইউ) গবেষকদের সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির পাবলিক হেলথ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. আহমেদ হোসাইনের নেতৃত্বে গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে।

২৭ মার্চ পর্যন্ত হিসাব উল্লেখ করে প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ৪৮ জন (ওই দিন পর্যন্ত) করোনা সংক্রমিতের মধ্যে ১১ জন সুস্থ হয়ে উঠেছে। মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃত্যুহার যেখানে সাড়ে ৪ শতাংশ, সেখানে বাংলাদেশে ১০.৪ শতাংশ। অর্থাৎ করোনায় বৈশ্বিক মৃত্যুহারের চেয়ে দ্বিগুণ বাংলাদেশে মৃত্যুহার।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৭ থেকে ২৭ মার্চের মধ্যে ৪৮টি সংক্রমণের মধ্যে সাতটি সংক্রমণের অবস্থান অজানা। বাকি ৪১টির মধ্যে ১৭টিই ঢাকায়। গবেষণা প্রতিবেদনে একটি মানচিত্রে ঢাকা ছাড়াও মাদারীপুর, কক্সবাজার, চুয়াডাঙ্গা ও গাইবান্ধায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, সংক্রমণ পরীক্ষাকেন্দ্র ঢাকাভিত্তিক হওয়ায় এবং প্রত্যন্ত এলাকায় পর্যাপ্ত ‘লজিস্টিক’ সুবিধা না থাকায় প্রকাশিত সংক্রমণ সংখ্যা প্রকৃত সংখ্যার চেয়ে কম হতে পারে।

সংক্রমিত ৪৮ জনের মধ্যে ১০ জনের লৈঙ্গিক পরিচয় প্রতিবেদনে ‘অজানা’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। বাকি ৩৬ জনের মধ্যে দুটি শিশু এবং ২৩ জন পুরুষ ও ১৩ জন নারী রয়েছে। বয়সওয়ারি হিসাবে সংক্রমিত যে ৪৪ জনের তথ্য পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে প্রায় ৪৮ শতাংশের বয়স ১৯ থেকে ৩৯ বছর। ২৭ শতাংশের বয়স ৪০ থেকে ৫৯ বছর। সংক্রমিতদের মধ্যে প্রায় ২১ শতাংশের বয়স ৬০ বা এরও বেশি। প্রায় ৪ শতাংশের বয়স ১৮ বছরের কম।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা