kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

পাইকগাছার আলেয়া হত্যা

পুলিশের বিরুদ্ধে আ. লীগ নেতাকে রক্ষার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাইকগাছা উপজেলার রাড়ুলী ইউনিয়নের একটি গুচ্ছগ্রামে বিধবা আলেয়া বেগম হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে। গুঞ্জন উঠেছে, হত্যাকারী হিসেবে সন্দেহভাজন আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতাকে রক্ষা করতে পুলিশ তদন্তের নামে যাকে-তাকে ধরে হেনস্তা করছে। অন্যদিকে পুলিশ দাবি করছে, তারা হত্যাকাণ্ডের রহস্য প্রায় উন্মোচন করে ফেলেছে। মূল হোতাকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। 

রাড়ুলীর কলমিবুনিয়া গুচ্ছগ্রামে বিধবা আলেয়া বেগম (৪৬) খুন হন গত ১৯ জানুয়ারি রাতে। ২০ জানুয়ারি ভোরে প্রতিবেশীরা তাঁর বসতঘরে গলায় ওড়না পেঁচানো এবং মুখের ওপর কম্বল চাপা অবস্থায় তাঁকে দেখতে পায়। তারাই পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পাইকগাছা থানার ওসি এমদাদুল হক শেখের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করেন।

এ ঘটনায় নিহতের ছেলে আলমগীর গাজী বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার আবেদনে বলা হয়, পাশের শ্রীকণ্ঠপুর গ্রামের মৃত মেহের বিশ্বাসের ছেলে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা আরশাদ আলী বিশ্বাস (৪৫), হাশেম সরদারের পুত্র আমান সরদার (৩৫) ও ফজু বিশ্বাসের পুত্র হোসেন বিশ্বাসের (৩২) সঙ্গে তাঁদের আগে থেকে বিরোধ ছিল। তাঁরা বিভিন্ন সময় তাঁদের ওপর হামলাও চালিয়েছেন। তাঁকে ও তাঁর মাকে বিভিন্ন সময় হত্যার হুমকি দিয়েছেন। ওই রাতে সুযোগ বুঝে তাঁকে হত্যা করেছেন।

বাদী আলমগীর গাজীর দাবি, তিনি ওই তিনজনকে আসামি করে মামলার আবেদন করেছিলেন, কিন্তু তাঁদের নাম আসামি হিসেবে না এসে কিভাবে আবেদনের ভেতরে এলো, তা তিনি বুঝতে পারছেন না। পুলিশ আওয়ামী লীগ নেতা আরশাদ আলীকে গ্রেপ্তার করছে না। ওই আওয়ামী লীগ নেতা এবং তাঁর স্বজনরা তাঁকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য চাপ দিচ্ছেন।  হুমকির এ ঘটনা জানিয়ে নিহতের ভাই পাইকগাছা থানায় গত ২৫ জানুয়ারি একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। 

অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নেতা আরশাদ আলী বিশ্বাস ও আমান সরদারের পরিবারের পক্ষ থেকে পাইকগাছা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে আরশাদ বিশ্বাসের স্ত্রী নাজমা বেগম বলেন, তাঁর স্বামী আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় স্থানীয় একটি মহল তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা