kalerkantho

বুধবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

হোসেনপুরে উপেক্ষিত এমপি সৈয়দা লিপি!

ব্যথিত হৃদয়ে চিঠি দিলেন আ. লীগ নেতাকে

শফিক আদনান, কিশোরগঞ্জ   

১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



হোসেনপুরে উপেক্ষিত এমপি সৈয়দা লিপি!

মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে ও কিশোরগঞ্জ-১ (সদর ও হোসেনপুর) আসনের সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ উপেক্ষা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সব শেষ হোসেনপুরে মাসব্যাপী মুজিববর্ষ মেলা উদ্বোধন করা হলেও তাঁকে জানানো হয়নি। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ মেলা উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ুন। এ পরিস্থিতিতে এমপি সৈয়দা লিপি বিব্রতবোধ করছেন উল্লেখ করে ‘ব্যথিত হৃদয়ে’ হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে চিঠি দিয়েছেন।

অভিযোগ উঠেছে, আগামী সংসদ নির্বাচনকে টার্গেট করে এ আসনের প্রয়াত এমপি ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বোন সৈয়দা লিপিকে স্থানীয় কর্মসূচির বাইরে রেখে একটি বলয় সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ুন হোসেনপুরের বাসিন্দা। তিনি ভবিষ্যতে এ আসনে নির্বাচন করতে চান। হোসেনপুরের রাজনীতিতে তিনি যথেষ্ট প্রভাবশালী। তাঁকে খুশি করতে বা তাঁর মত নিয়ে হয়তো মাসব্যাপী মুজিববর্ষ মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

সৈয়দা লিপিকে উপেক্ষার ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীও ক্ষুব্ধ। তাঁরা বলেন, প্রথা অনুযায়ী দুই উপজেলার সামগ্রিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও দলীয় কর্মসূচি এমপি সৈয়দা লিপিকে ঘিরেই আবর্তিত হওয়ার কথা। কিন্তু হোসেনপুর উপজেলায় তাঁকে পাশ কাটিয়ে এমনকি না জানিয়ে অনেক কিছু হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার হোসেনপুর উপজেলার ধনকুড়া হ্যালিপ্যাড মাঠে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের আয়োজনে মাসব্যাপী মুজিববর্ষ মেলা শুরু হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে এ মেলা উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ুন। এ মেলায় সার্বিক সহযোগিতা করে উপজেলা প্রশাসন। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোহেল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন, পৌর মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) জহিরুল ইসলাম নুরু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক শাহ মাহবুবুল হকসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। কিন্তু দাওয়াত দূরে থাক, স্থানীয় সংসদ সদস্য সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপিকে এ ব্যাপারে কিছুই জানানো হয়নি।

এ ঘটনায় ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ এমপি সৈয়দা লিপি বুধবার হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে চিঠি দেন। জাতীয় সংসদের প্যাডে কড়া ভাষায় লেখা এ চিঠিতে তিনি বলেন, ‘আমি জেনে অত্যন্ত খুশি যে, আপনি/আপনারা মুজিববর্ষ উপলক্ষে হোসেনপুর উপজেলায় মাসব্যাপী একটি মেলার আয়োজন করতে যাচ্ছেন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে মেলার আয়োজনের ব্যাপারে আপনি বা আপনারা কেউ আমাকে অবগত করেন নাই। উক্ত হোসেনপুর আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য হওয়া সত্ত্বেও আমাকে মেলার আয়োজনের ব্যাপারে অবগত না করায় এবং অনুষ্ঠানে উপস্থিতির বিষয়ে নিমন্ত্রণ না দেওয়া বড়ই অশোভনীয় একটি কাজ। একজন নির্বাচিত সংসদ সদস্য হিসেবে এরূপ পরিস্থিতি আমার জন্য বিব্রতকর এবং এমন পরিস্থিতি যেন ভবিষ্যতে আর না হয় সে ব্যাপারে আপনারা সতর্ক/সচেতন থাকবেন।’

এ প্রসঙ্গে গতকাল শুক্রবার সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কেবল মেলার কথা জানায়নি বা আমাকে নিমন্ত্রণ করেনি এ জন্য নয়, আমার সঙ্গে এ ধরনের আরো বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে, যা আমার জন্য খুবই লজ্জা ও বিব্রতকর। তাই অনেকটা বাধ্য হয়ে ব্যথিত হৃদয়ে এই চিঠি দেওয়া। দলের চেইন অব কমান্ড প্রতিষ্ঠাও এমপি হিসেবে আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। ভবিষ্যতে এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘হোসেনপুর আমার নির্বাচনী এলাকা। এর ভালোমন্দের জবাবদিহি আমাকেই করতে হয়। এটা অন্য কারো কাজ নয়।’

ব্যানার-ফেস্টুনে আয়োজক হিসেবে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নাম থাকলেও বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা শুরু হওয়ায় আয়োজকরা এখন এসব অস্বীকার করছেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল ইসলাম নূরু মিয়া বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নয়, বিভিন্ন ক্লাব মিলে মুজিববর্ষ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। আমাদের এমপিকে হয়তো কেউ ভুল বুঝিয়েছে, তাই তিনি রেগে এই চিঠি দিয়েছেন।’

তবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু বলেন, এখন হয়তো তাঁরা চাপে পড়ে মিথ্যা কথা বলছেন। প্রকৃতপক্ষে মেলার আয়োজক আওয়ামী লীগ। জেলা কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে।’

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, তিনি (লিপি) আর কেউ নন, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে। প্রয়াত নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বোন। তাঁকে  উপেক্ষা করা, তাঁকে নিয়ে খেলা নিন্দনীয় কাজ। হোসেনপুর আওয়ামী লীগের কাছে এর ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। প্রয়োজনে এসবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা