kalerkantho

বুধবার । ২৯ জানুয়ারি ২০২০। ১৫ মাঘ ১৪২৬। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

খালেদার স্বাস্থ্যবিষয়ক প্রতিবেদন

ভিন্ন রিপোর্ট আদালতে গেছে, দাবি ফখরুলের

‘মেডিক্যাল রিপোর্টের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জনগণের রিপোর্ট’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ভিন্ন রিপোর্ট আদালতে গেছে, দাবি ফখরুলের

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের যে রিপোর্ট আদালত চেয়েছেন, সেই মেডিক্যাল রিপোর্ট এখন পর্যন্ত কোর্টে আসেনি। আমরা যেটুকু জানতে পেরেছি, বিএসএমএমইউ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দেওয়া প্রতিবেদন সরিয়ে দিয়ে অন্য কোনো রিপোর্ট দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আমরা খুব পরিষ্কারভাবে লক্ষ করছি, অত্যন্ত সচেতনভাবে দেশনেত্রীকে বেআইনিভাবে কারাগারে আটক করে রাখার জন্য সরকার কাজ করছে এবং এভাবে তারা বড় রকমের মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে।’

গতকাল বুধবার দুপুরে গুলশানে লেকশোর হোটেলে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে বিএনপি আয়োজিত গোলটেবিল আলোচনাসভায় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের প্রতিবেদন নিয়ে আপিল বিভাগে শুনানির এক দিন আগে ফখরুল এই আশঙ্কার কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গত ৩০ নভেম্বর বিএসএমএমইউ উপাচার্যের গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের রিপোর্টটি তিনি পড়ে শোনান। ফখরুল বলেন, এই রিপোর্টটিই সুপ্রিম কোর্ট চেয়েছিলেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেটা উপস্থিত করা হয়নি।

ফখরুল বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে শুধু ভিন্নমত, ভিন্ন রাজনৈতিক চিন্তার কারণে প্রায় ৩৫ লাখ মানুষকে রাজনৈতিক মামলার আসামি করা হয়েছে। মামলা দেওয়া হয়েছে প্রায় এক লাখ চার হাজার ৮১৪টি। এর মধ্যে ২০০৯ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত সরকার এবং আওয়ামী লীগের হাতে এক হাজার ৫২৬ জন বিরোধী দলের নেতাকর্মী মারা গেছেন এবং ডিস-অ্যাপিয়ার (নিখোঁজ) হয়েছেন বিএনপির ৪২৩ জন—সব মিলিয়ে ৭৮১ জন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বাংলাদেশে আজকে গণতন্ত্র নেই, মানুষের অধিকার নেই। এই সরকার মানুষকে বোকা বানিয়ে উন্নয়নের কথা বলে।’

অনুষ্ঠানে গত ১০ বছরে ‘গুম এবং খুন হওয়া’ ২৭টি পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিল। ‘নিখোঁজ’ হয়ে যাওয়া বিএনপির নেতাকর্মীদের স্বজনদের অনেকে প্রিয়জনের সন্ধান চেয়ে অশ্রুসজল কণ্ঠে বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে বিএনপির উদ্যোগে লিখিত ‘অ্যাবসেন্স অব ডেমোক্রেসি অ্যান্ড সিস্টেমেটিক হিউম্যান রাইটস ভায়োলেশন বাই স্টেট অ্যাপারেটাস’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন ফখরুল। গ্রন্থের ওপর তথ্যচিত্র তুলে ধরেন ডা. সাখাওয়াত হোসেন সায়ান্থ। বিএনপির মানবাধিকার সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত, রাশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ ১৫টি দেশের কুটনীতিকরা অংশ নেন।

ফখরুলের সভাপতিত্বে এবং শামা ওবায়েদ ও ফারজানা শারমিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিএনপির ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিশিষ্ট নাগরিক ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক মাহবুবউল্লাহ, এ এইচ এম মোফাজ্জল করীম, নুর খান, মাসুদ আজিজ প্রমুখ বক্তব্য দেন। অন্যদের মধ্যে বিএনপির সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মেডিক্যাল রিপোর্টের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জনগণের রিপোর্ট : খসরু

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) একাংশের উদ্যোগে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত আলোচনাসভায় বলেছেন, খালেদা জিয়া জামিনের বিষয়ে কালকের (আজ) দিনটার দিকে বাংলাদেশের মানুষ তাকিয়ে আছে। বেগম জিয়ার আইনগত যে অধিকার, সেখান থেকে বঞ্চিত করে যদি জামিন না দেওয়া হয়, তাহলে বাংলাদেশের মানুষ তাঁর মুক্তির আন্দোলনের যে সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছে সেটাই করবে।

খসরু বলেন, ‘আমি আবারও বলছি—মেডিক্যাল রিপোর্টের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বাংলাদেশের জনগণের রিপোর্ট। এই রিপোর্টটা বুঝে নেন।’

এলডিপির একাংশের আহ্বায়ক আবদুল করীম আব্বাসীর সভাপতিত্বে সভায় ২০ দলীয় জোটের শরিক জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) সভাপতি মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, এলডিপির সদস্যসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, সদস্য আবদুল গনি প্রমুখ বক্তব্য দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা