kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর নামে মানহানিকর প্রতিবেদন, মামলা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

২২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ধর্ষণের শিকার এক কলেজছাত্রীর নামে মানহানিকর প্রতিবেদন ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকিরুল ইসলাম উইলিয়াম ও ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান মতিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গত মঙ্গলবার ওই ছাত্রীর বাবা টাঙ্গাইলের বিচারিক হাকিম আদালতে মামলাটি করেন। বিচারক নওরীণ মাহবুবা মামলাটি তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন, নাগরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম, ধুবড়িয়া ছেফাতুল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শাহাবুল আলম দুলাল ও ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুর রহমান শাকিল।

বাদীর অভিযোগ, গত ১২ জুলাই সারটিয়াগাজি গ্রামের জবেদারের ছেলে জুয়েল এক কলেজছাত্রীকে অপহরণ করে তিন দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এ ঘটনার পর ছাত্রীর বাবা নাগরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকিরুল ইসলাম উইলিয়ামের সঙ্গে দেখা করে প্রতিকার চান। উইলিয়াম কোনো প্রতিকার না করে উল্টো ধর্ষণের মামলা গ্রহণ না করতে থানা পুলিশকে চাপ দেন। পরে কলেজছাত্রীর বাবা টাঙ্গাইল আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। এর পর থেকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য আসামিরা বাদীকে একের পর এক হুমকি দিয়ে আসছেন।

বাদীর অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, আসামিপক্ষকে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতার যোগসাজশে ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ওই ছাত্রীকে পতিতা ও মাদক কারবারি উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। অভিযুক্ত জুয়েল রানা আওয়ামী লীগ নেতা জাকিরুল ইসলাম উইলিয়ামের অনুসারী হওয়ায় তাকে মামলা থেকে বাদ দেওয়ার জন্য বাদীপক্ষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে।

টাঙ্গাইলের পিপি এস আকবর খান বলেন, বিচারক নওরীণ মাহবুবা অভিযোগ তদন্ত করে আগামী ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

নাগরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকিরুল ইসলাম উইলিয়াম বলেন, অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। একটি মহল আমার সম্মান ক্ষুণ্ন করার জন্য মামলাটি করেছে।

মন্তব্য