kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

দেশে অসংক্রামক রোগের নগরভিত্তিক নতুন সমীক্ষা

ঢাকায় বেশি হাইপার টেনশন ও বিষণ্নতা

মোটা মানুষ বেশি খুলনায়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশের অন্যান্য নগরের তুলনায় ঢাকায় ৭ শতাংশ বেশি মানুষ হাইপার টেনশনে ভুগছে। এ ছাড়া ডায়াবেটিস ও হৃদেরাগের প্রকোপও বেশি। তবে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ (স্ট্রোক) ও ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদি রোগে (সিওপিডি) ভুগছে এমন মানুষের হার ঢাকার বাইরে বেশি। তবে ঢাকায় বিষণ্নতায় ভুগছে এমন মানুষ বেশি। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত তিন মাসব্যাপী ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকা ও খুলনা সিটি করপোরেশন এলাকায় সমীক্ষা চালিয়ে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

সরকারের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের আওতায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিশেষজ্ঞদল ওই সমীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে।

গতকাল মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত একটি কারিগরি কমিটির সভায় ওই সমীক্ষার ফলাফল উপস্থাপন করা হয়। সভায় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম সভাপতিত্ব করেন। আলোচনা করেন অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমান খান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েত হোসেন, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্স ফ্যাকাল্টির ডিন অধ্যাপক ড. গিয়াস ইউ আহসান প্রমুখ।

বাংলাদেশের অসংক্রমিত রোগের প্রাদুর্ভাবের চিত্র তুলে ধরে জানানো হয় যে দেশে মোট মৃত্যুর ৬৭ শতাংশই হয় অসংক্রামক বিভিন্ন রোগের কারণে। এর মধ্যে ৩০ শতাংশ হৃদেরাগে, ১২ শতাংশ ক্যান্সারে, ১০ শতাংশ শ্বাসতন্ত্রের রোগে, ৩ শতাংশ ডায়াবেটিসে এবং ১২ শতাংশ অন্যান্য রোগে মৃত্যু হয়। সর্বশেষ সরকারি প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে।

অসংক্রামক রোগের নগরভিত্তিক নতুন সমীক্ষা প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকায় বয়স্ক জনগোষ্ঠীর মধ্যে ২৫.৯ শতাংশ মানুষ হাইপারটেনশনে, ২০ শতাংশ ডায়াবেটিসে, ৬.৬ শতাংশ হৃদেরাগে, ১.৪ শতাংশ স্ট্রোক ও ০.৭ শতাংশ মানুষ সিওপিডি রোগে ভুগছে। অন্যদিকে খুলনায় ১৯.১ শতাংশ মানুষ হাইপারটেনশনে, ১২.৩ শতাংশ ডায়াবেটিস, ৪.৫ শতাংশ হৃদেরাগে, ২.১ শতাংশ স্ট্রোক ও ১.৪ শতাংশ মানুষ সিওপিডিতে আক্রান্ত।

তবে অসংক্রামক রোগের অন্যতম কারণ হিসেবে চিহ্নিত লবণ খাওয়ার প্রবণতা ঢাকা ও খুলনার মানুষের মধ্যে প্রায় সমান। ঢাকায় ৩৯ শতাংশ এবং খুলনায় ৩৮ শতাংশ মানুষ নিয়মিত খাবারের সঙ্গে কাঁচা লবণ খেয়ে থাকে। তবে ফাস্ট ফুড খাওয়ার ক্ষেত্রে খুলনার চেয়ে প্রায় ১৯ শতাংশ বেশি খেয়ে থাকে ঢাকার মানুষ। এ ক্ষেত্রে সপ্তাহে পাঁচ থেকে সাত দিন ঢাকায় নিয়মিত ফাস্ট ফুড খায় ৬১.৩ শতাংশ মানুষ। অন্যদিকে খুলনায় এই হার ৫৩.৬ শতাংশ।

সমীক্ষার প্রতিবেদন বলছে, ঢাকার চেয়ে খুলনায় তামাক গ্রহণের প্রবণতা বেশি। ঢাকায় ১৬ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনো তামাক গ্রহণ করে, খুলনায় এই হার ১৯.৪ শতাংশ। অ্যালকোহল গ্রহণের ক্ষেত্রেও ঢাকার চেয়ে খুলনায় বেশি হার পাওয়া গেছে। খুলনায় ২ শতাংশ এবং ঢাকায় ১ শতাংশ মানুষ নিয়মিত অ্যালকোহল গ্রহণ করে। এ ছাডা ঢাকায় অতিরিক্ত ওজনধারী মানুষ ২৯ শতাংশ এবং খুলনায় এই হার ২৭ শতাংশ। তবে স্থূল মানুষের হার ঢাকার চেয়ে খুলনায় কিছুটা বেশি। ঢাকায় ১০ শতাংশ এবং খুলনায় ১২ শতাংশ মানুষ মোটা। অন্যদিকে ঢাকায় ৭ শতাংশ মানুষ কম ওজনের, খুলনায় তা ৮ শতাংশ।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, ঢাকায় সবচেয়ে বেশি মানুষ বিষণ্নতায় ভুগছে। এ হার ৭৫.৭ শতাংশ। অন্যদিকে খুলনায় এই হার ৫৬.৪ শতাংশ। পারিবারিক সহিংসতার শিকার ঢাকায় ২৭.৯ শতাংশ এবং খুলনায় ১৮.১ শতাংশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা