kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

‘ব্যানারে নাম না থাকায়’ ক্ষুব্ধ হাজি সেলিম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সংসদ সদস্য হিসেবে ‘সম্মান না দেওয়া’ এবং ‘ব্যানারে নাম না থাকায়’ কাউন্সিলর ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ঢাকা-৭ আসনের এমপি হাজি মোহাম্মদ সেলিম। ক্ষোভে কাউন্সিলরের প্রতি তেড়ে যাওয়া এবং মাইক ফেলে দেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। গতকাল শনিবার পুরান ঢাকার লালবাগে শহীদ হাজি আব্দুল আলীম খেলার মাঠের সংস্কারকাজ শেষে তা নগরবাসীর জন্য খুলে দেওয়া উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ওই ঘটনা ঘটে। সিটি করপোরেশনের একাধিক কর্মকর্তা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, ‘জল সবুজে ঢাকা’ নামের একটি প্রকল্পের আওতায় ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের শহীদ হাজি আব্দুল আলীম খেলার মাঠের আধুনিকায়নের কাজ করা হয়েছে। আধুনিকায়নে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রায় আট কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। মাঠটিতে ক্রিকেট ও ফুটবল খেলার জন্য আলাদা মাঠ, শিশুদের খেলার স্থান, হাঁটাচলার রাস্তা, পাঠাগার এবং খাবারের দোকান তৈরি করা হয়েছে। মাঠটি গতকাল নগরবাসীর জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মেয়র সাঈদ খোকন। মেয়র মাঠে যাওয়ার আগে বিকেল ৩টার দিকে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হন স্থানীয় সংসদ সদস্য হাজি মোহাম্মদ সেলিম। ওই সময় ব্যানারে ও এলইডি স্ক্রিনে মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন এবং ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. হাসিবুর রহমান মানিকের নাম ছিল। নিজের নাম না দেখে কাউন্সিলর ও ডিএসসিসি কর্মকর্তাদের ওপর খেপে যান হাজি সেলিম। একপর্যায়ে তিনি নিজেই মঞ্চে উঠে মাইক ফেলে দেন। এ ছাড়া হাজি সেলিমের অনুসারীরা কাউন্সিলর মানিকের দিকে তেড়ে যান এবং মঞ্চের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেন। এ ছাড়া ‘সংসদ সদস্যকে সম্মান না দেওয়ার’ কারণে অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয় মাইকে। ওই সময় কাউন্সিলর ও এমপির অনুসারীরা নিজেদের নেতাদের পক্ষে স্লোগান দিতে থাকে। এতে হট্টগোল প্রায় আধঘণ্টা চলে। এরপর কাউন্সিলর মানিক অতিথিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য দেওয়া শুরু করলে আবার তাঁর দিকে তেড়ে যান হাজি সেলিম। পরে মেয়র সাঈদ খোকন বিকেল ৪টায় মঞ্চে উঠলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

হাজি সেলিমের ছেলে মো. সোলায়মান সেলিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সংসদ সদস্য হিসেবে যথাযোগ্য মর্যাদা না দেওয়ার কারণে অপ্রীতিকর একটি ঘটনা ঘটেছিল কাউন্সিলরের সঙ্গে। তবে মেয়রের হস্তক্ষেপে তা সমাধান করা হয়েছে। এখানে সবাই আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য। সামান্য সমস্যা হলেও রাজনৈতিক ও পারিবারিকভাবে তা সমাধান করা হয়।’

ডিএসসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মেয়র মঞ্চে যাওয়ার আগে কাউন্সিলর ও সংসদ সদস্যের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা