kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

আদালতে নির্দোষ দাবি করলেন ওসি মোয়াজ্জেম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আদালতে নির্দোষ দাবি করলেন ওসি মোয়াজ্জেম

ফেনীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির বক্তব্য ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানোর অভিযোগে করা মামলায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন সোনাগাজী মডেল থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস-শামস জগলুল হোসেনের আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থনে তিনি বলেন, ‘কেউ যেন অনৈতিক সুবিধা নিতে না পারে, তার প্রমাণ রাখতে আমি ভিডিওটি ধারণ করি। কিন্তু রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ফায়দা লোটার জন্য আমার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এমনকি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আইনানুযায়ী তদন্ত করেননি। আমি কোনো অপরাধ করিনি।’

এই মামলায় নুসরাতের মা, ভাই, দুই বান্ধবীসহ ১২ জন এর আগে সাক্ষ্য দিয়েছেন। এরপর আদালত এ মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য আগামী ২০ নভেম্বর দিন ধার্য করেন। ওসি মোয়াজ্জেম আরো বলেন, ‘৬ এপ্রিল আলিম পরীক্ষা শুরুর দিন নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়া হয়। তখন আমি থানায় ছিলাম। প্রথমে জানতাম না কার গায়ে আগুন দেওয়া হয়েছে। আমি তখন মাদরাসায় গিয়ে শুনলাম নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়া হয়েছে। তখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাই। ফেনীতে তাঁর চিকিৎসার খরচ আমি দিয়েছি। আমি অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়া করে ঢাকায় পাঠানোর ব্যবস্থা করি। আগুন লাগার পর ৮ এপ্রিলের মধ্যে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করি। সময় টিভির সাংবাদিক সজল শেয়ার ইট করে আমার মোবাইল থেকে নুসরাতের দুটি ভিডিও নিয়ে নেন।’

ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, ‘আমার ১৫ বছরের ছেলেটা স্কুলে যেতে পারে না। আমার ছোট বাচ্চা ও ৭৫ বছর বয়সের মা কান্নাকাটি করে। আমি যে শাস্তি পেয়েছি, যা ১০টা খুন করলেও পেতে হতো না। গত ছয়-সাত মাস পৃথিবীর কাছে নিজেকে কলঙ্কিত করে ফেলেছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা