kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পালমোকন সম্মেলনে বক্তারা

ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদি রোগে পালমোনারি রিহ্যাবিলিটেশন গুরুত্বপূর্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর মহাখালীতে জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালে গতকাল শুক্রবার পালমোকন ২০১৯ সম্মেলনে বক্তরা দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসের সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য ‘পালমোনারি রিহ্যাবিলিটেশন’ শীর্ষক পুনর্বাসন কার্যক্রমের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

বক্তারা জানান, অ্যাজমা, সিওপিডির মতো দীর্ঘমেয়াদি কিছু রোগ মোকাবেলা করে ফুসফুসের কার্যক্ষমতা ফিরিয়ে আনতে পালমোনারি রিহ্যাবিলিটেশন পুনর্বাসন কার্যক্রম বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে যারা বহুদিন ধরে ফুসফুসের সমস্যায় ভুগছে, ফুসফুসের শক্তি কমে যাওয়ায় যারা শারীরিক অক্ষমতার শিকার, সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিয়েও জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে যাদের, তাদের জন্য এ পুনর্বাসন কার্যক্রম বেশ উপযোগী। গোল্ড নির্দেশনা অনুযায়ী যাদের উপসর্গ যত বেশি, ফুসফুসের এই পুনর্বাসন কার্যক্রম গ্রহণ করলে তারা তত বেশি উপকৃত হবে।

বাংলাদেশ প্রাইমারি কেয়ার রেসপিরেটরি সোসাইটি (বিপিসিআরএস) আয়োজিত সম্মেলনে বক্তারা আরো জানান, পুনর্বাসন কার্যক্রমে রোগীদের রোগ সম্পর্কে ধারণা দেওয়া, মাংসপেশি নমনীয় ও প্রসারিত করার ব্যায়াম, কাঁধের ব্যায়াম, পায়ের ব্যায়াম, শ্বাস-প্রশ্বাসের মাংসপেশির শক্তি বাড়ানোর ব্যায়াম ইত্যাদি শেখানো হয়। এ ছাড়া পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ, ইনহেলারের সঠিক ব্যবহার, মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন, বিকল্প জীবিকা সম্পর্কেও ধারণা দেওয়া হয়। এতে অ্যাজমা বা সিওপিডি রোগীরা তুলনামূলক ভালো জীবন যাপন করতে পারে। বাংলাদেশে প্রাইমারি কেয়ার ফিজিশিয়ানরা দীর্ঘমেয়াদি ফুসফুসের রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। তবে পালমোনারি রিহ্যাবিলিটেশন সম্পর্কে সাধারণ চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণ নেওয়া জরুরি।

গতকালের অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ড. ইনামুল হক, বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার মোহাম্মদ আসলাম প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা