kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

অঙ্গ প্রতিস্থাপন বিষয়ে প্রতিবেদন হাইকোর্টে

আত্মীয়ের বাইরে কিডনি প্রতিস্থাপন দরিদ্রদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলবে

ডা. জাফরুল্লাহর ভিন্নমত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আত্মীয় নয়—এমন কারো কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন নেই বলে অভিমত দিয়েছেন ছয়জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও একজন সমাজবিজ্ঞানী। তাঁরা বলেছেন, আইনের বাইরে অন্য কারো কিডনি প্রতিস্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি হলে দেশের দরিদ্র মানুষের জীবন সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। ধনীরা বাণিজ্যিকভাবে এর ব্যবহার করবে। অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পাচারের মাত্রা বাড়বে।

তবে সাত সদস্যের এই বিশেষজ্ঞ কমিটির মতামতের সঙ্গে একমত নন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. মোহাম্মদ জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেছেন, ‘মানবদেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন বিষয়ে দেশের বর্তমান আইন সংশোধন হওয়া প্রয়োজন। এই আইনে নিকটাত্মীয় ছাড়া অন্য কারো অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দান করার সুযোগ নেই। তাই একজন সুস্থ মানুষ চাইলে অন্য কাউকে তাঁর অঙ্গ দান করতে পারেন—এমন আইন থাকা দরকার। এটা সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত। সে ক্ষেত্রে দরিদ্র মানুষেরা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে জন্য আইনে বিশেষ বিধান রাখা প্রয়োজন।’

বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চে গতকাল বৃহস্পতিবার বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এরপর আদালত কয়েকজন বিশেষজ্ঞ, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও আইনজীবীদের বক্তব্য শোনেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপ-উপাচার্য ও বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. রফিকুল আলমের নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রতিবেদন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয়ে দাখিল করা হয় গত ২৯ অক্টোবর। এরপর গতকাল এই প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ। পরে আদালত উপস্থিত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের বক্তব্য শোনেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা