kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দায়বদ্ধ লেখকও

শেখ হাসিনার বই নিয়ে বাংলা একাডেমিতে সপ্তাহব্যাপী প্রদর্শনী শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দায়বদ্ধ লেখকও

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল বাংলা একাডেমিতে বই প্রদর্শনী ও আলোচনা অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। ছবি : কালের কণ্ঠ

শেখ হাসিনা শুধু রাষ্ট্রনায়কই নন, একজন সফল ও দায়বদ্ধ লেখকও। এ পর্যন্ত তাঁর ২৮টি বই প্রকাশিত হয়েছে। এসব বইয়ে তিনি তাঁর স্বপ্নের কথা বলেছেন। বলেছেন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার পরিকল্পনার কথা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে বাংলা একাডেমি আয়োজিত অনুষ্ঠানে লেখক শেখ হাসিনার রচনা প্রসঙ্গে বক্তারা এসব কথা বলেন।

গতকাল বুধবার একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে ‘লেখক শেখ হাসিনা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান, শেখ হাসিনাকে নিবেদিত স্বরচিত কবিতা পাঠ, আবৃত্তি ও সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেই সঙ্গে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে শেখ হাসিনা রচিত ও সম্পাদিত গ্রন্থের সপ্তাহব্যাপী প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয়েছে। অতিথিরা সবাই মিলে উদ্বোধন করেন এ প্রদর্শনী।

অনুষ্ঠানে ‘লেখক শেখ হাসিনা’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কবি কামাল চৌধুরী। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিসচিব মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। আলোচনা অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী।

গান দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং নজরুলগীতি পরিবেশন করেন শিল্পী খায়রুল আনাম শাকিল। স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি রুবী রহমান ও কবি মুহাম্মদ সামাদ। কবি মহাদেব সাহার কবিতা আবৃত্তি করেন মো. শওকত আলী। সুকান্ত ভট্টাচার্যের কবিতা আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী আহ্কামউল্লাহ এবং শেখ হাসিনাকে নিয়ে লেখা সৈয়দ শামসুল হকের কবিতা আবৃত্তি করেন ডালিয়া আহমেদ।

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, ‘৩০ বছর আগে শেখ হাসিনার প্রথম গ্রন্থ ওরা টোকাই কেন-এর ভূমিকা লিখেছিলাম আমি। তখন ভাবিনি রাজনীতির প্রবল দাবি মিটিয়ে তিনি লেখালেখি অব্যাহত রাখতে পারবেন। কিন্তু আমাদের বিস্মিত করে দিয়ে রাজনীতির পাশাপাশি লেখালেখিতেও শেখ হাসিনা সমান সক্রিয়তার পরিচয় দিয়ে চলেছেন। তাঁর রচনায় দারিদ্র্য দূরীকরণ, শিক্ষা বিস্তার এবং গণতন্ত্রের প্রসার—জনমানুষের সঙ্গে সম্পৃক্ত এই তিনটি বিষয় মূল প্রতিপাদ্য হিসেবে ধরা দেয়।’

প্রতিমন্ত্রী খালিদ বলেন, ‘বাংলার মানুষের রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক এবং সামাজিক মুক্তির লক্ষ্যে নিরলস সংগ্রামের পাশাপাশি এ দেশের সাংস্কৃতিক জাগরণেও শেখ হাসিনা ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করে চলেছেন।’

হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, ১৯৮৮ সালে প্রকাশিত হয়েছিল শেখ হাসিনার প্রথম বই ‘ওরা টোকাই কেন’। ২০১৮ সালে তাঁর প্রথম বই প্রকাশের ৩০ বছর পূর্ণ হলো। আজকের এই আলোচনা সে অর্থে শেখ হাসিনার লেখক জীবনের তিন দশক পূর্তিরও আনন্দ উদযাপন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা