kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

স্বামীর সামনে তরুণীকে গণধর্ষণ

নেত্রকোনা প্রতিনিধি   

১১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঈদ উপলক্ষে বেড়াতে যাওয়ার পথে নেত্রকোনায় এক তরুণী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। স্বামীর সামনেই ছয় যুবক তাঁকে ধর্ষণ করে। গত শুক্রবার রাতে সদর উপজেলার চল্লিশা রাজেন্দ্রপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রাতেই পুলিশ ধর্ষণে অভিযুক্ত তিনজন ও তাদের এক সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে এবং স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নির্যাতিতা তরুণীকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন সাইদুল ইসলাম (৩০), রেজাউল করিম পাভেল (২৮), জামান বাশার (২৭) এবং তাঁদের সহযোগী সারিন্দা ফাস্ট ফুড নামের দোকানের ম্যানেজার মাহফুজুল ইসলাম মামুন। অন্য অভিযুক্তরা হলেন এনামুল হক সম্রাট (২৭), জিহান (২৭) ও রাসেল (৩০)। তাঁরা পলাতক। পুলিশ জানিয়েছে, ধর্ষণে অভিযুক্তদের বাড়ি রাজেন্দ্রপুর গ্রামে। মামুনের বাড়ি পূর্বধলা উপজেলার কৈলাটি গ্রামে। 

জানা গেছে, তরুণীর বাড়ি কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলায়। তাঁর মা-বাবা ময়মনসিংহের ভালুকায় থাকেন। আর তাঁর স্বামীর বাড়ি গৌরীপুর উপজেলায়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তরুণী ও তাঁর স্বামী নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার ‘স্বজনবাড়ি’তে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ভালুকা থেকে রওনা দেন। ময়মনসিংহ বাসস্ট্যান্ডে এসে তাঁরা নেত্রকোনাগামী বাসে ওঠেন। বাসটি সন্ধ্যায় চল্লিশা রাজেন্দ্রপুর এলাকার বিসিক শিল্পনগরীর কাছে এলে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে তরুণী স্বামীসহ বাস থেকে নামেন। পরে তিনি সারিন্দা ফাস্ট ফুড দোকানের পেছনের টয়লেট ব্যবহার করতে যান। তখন পাঁচ-ছয়জন যুবক তাঁর স্বামীকে অবরুদ্ধ করে রেখে তাঁকে (তরুণী) সারিন্দা ফাস্ট ফুডের ম্যানেজারের কক্ষে নেয় এবং রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ধর্ষণ করে। স্বামীসহ তরুণীকে কক্ষটিতে আটক করে রাখে। রাত ১টার দিকে ঘটনা প্রকাশ না করার শর্ত এবং হুমকি দিয়ে তাঁদের ছেড়ে দেয়। তাঁরা নেত্রকোনা মডেল থানায় গিয়ে ঘটনাটি জানান।

থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় গতকাল শনিবার নির্যাতিতা তরুণী মামলা করেছেন। পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা