kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

শাটল ট্রেনে বসাকে কেন্দ্র করে

চবিতে ছাত্রলীগের দুই পক্ষে মারামারি আহত ৩

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শাটল ট্রেনের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এতে তিন কর্মী আহত হয়েছেন। রবিবার বিকেল ৫টা থেকে ঘটনা শুরু। এরপর রাত ১২টা পর্যন্ত ক্যাম্পাসে থেমে থেমে দুই পক্ষে মারামারির ঘটনা ঘটে। বিবদমান দুই পক্ষের একদিকে রয়েছে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী বিজয় গ্রুপ ও অন্যদিকে রয়েছে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী সিক্সটি নাইন গ্রুপ। আহতরা হলেন বিজয় গ্রুপের বখতিয়ার, সিক্সটি নাইন গ্রুপের মুজিবুল হক ও দেলোয়ার হোসেন ফারাবী।

জানা যায়, বিকেলের ট্রেনের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে বিজয় গ্রুপের কর্মী ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র বখতিয়ারের সঙ্গে কথা-কাটাকাটি হয় ‘সিক্সটি নাইন’ গ্রুপের কর্মীদের। একপর্যায়ে বেশ কয়েকজন মিলে বখতিয়ারকে মারধর করে। এ ঘটনার পর রাতে বিজয় গ্রুপের কর্মীরা সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে রামদা, রড ও ইটপাটকেল নিয়ে অবস্থান নেয়। পরে রাত ১০টার দিকে সিক্সটি নাইন গ্রুপের দুই কর্মী ওই হলের সামনে এলে তাঁদের পিটিয়ে জখম করে বিজয়ের কর্মীরা। অন্যদিকে সিক্সটি নাইন গ্রুপের কর্মীরা শাহজালাল হলের সামনে অবস্থান নেয়। পরে রাত ১২টার দিকে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা রাজু মুন্সী বলেন, ‘জুনিয়রদের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়েছিল। সেটা সঙ্গে সঙ্গে মীমাংসা হয়ে যায়। তবে নতুন কমিটিকে বেকায়দায় ফেলতে তারা এটা নিয়ে আবার ঝামেলা সৃষ্টি করে। আমরা ঝামেলার পক্ষে না।’ বিজয় গ্রুপের নেতা মাহমুদুল হাসান রূপক বলেন, ‘আমাদের কর্মীকে মেরে আর মাথা ফাটিয়ে তো মীমাংসা হয় না। তার পরও আমরা বলেছি ঝামেলা করব না, তোমাদের কেউ যেন সোহরাওয়ার্দী হলের কাছে না আসে। জুনিয়ররা পেলে তো ঝামেলা করবেই। কিন্তু তারা শোনেনি।’

হাটহাজারী থানার ওসি বেলাল উদ্দীন জাহাঙ্গীর জানান, এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর রিফাত রহমান বলেন, ‘যারা অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করবে তাদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। প্রশাসন সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে আছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা