kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

কমলাপুরে ‘টিকিট নেই’ রব

৫ আগস্ট থেকে ফেরার টিকিট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রির তৃতীয় দিন ছিল গতকাল বুধবার। রাজধানীর কমলাপুরসহ পাঁচটি স্থানেই টিকিটপ্রত্যাশীদের ভিড় ছিল উপচে পড়া। ৯ আগস্ট ট্রেনে বাড়ি যাওয়ার টিকিট বিক্রি করা হয়েছে গতকাল। তবে সারা রাত জেগে থেকেও টিকিট পায়নি বেশির ভাগ টিকিটপ্রত্যাশী। ট্রেনের টিকিট পেতে ব্যর্থ হওয়া এই মানুষগুলো বাসের টিকিট পেতে গাবতলী, কলেজ গেট, কল্যাণপুরসহ বিভিন্ন কাউন্টারে ছুট লাগায়, তবে সে ক্ষেত্রে বিফল হয় অনেকে। তবে শেষ পর্যন্ত তদবিরের জোরে টিকিট পেতে অনেককে এখানে-সেখানে বড়কর্তাদের দপ্তরে ছোটাছুটি ও ফোন করতে দেখা গেছে।

গতকাল দুপুর দেড়টায় কমলাপুর রেলস্টেশনের ১০টি কাউন্টারেই ভিড় দেখা গেছে। এখানে পশ্চিমাঞ্চলগামী ট্রেনগুলোর টিকিট পেতে আগ্রহীরা লাইন ধরেছিল। টিকিটের অপেক্ষায় থাকা নারারয়ণগঞ্জের তুলা মিয়া বলেন, ‘মঙ্গলবার রাত দেড়টা থেকে এখানে আছি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ যাওয়ার তিনটি টিকিটের জন্য এসেছি। এখনো পাইনি। কাউন্টার থেকে টিকিট না পেয়ে আমার পরিচিত কয়েকজন বাসের টিকিটের জন্য গাবতলী বাস টার্মিনালে গেছেন।’ আলী হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘ডেঙ্গুর ভয়ে আগেই বাড়ি যেতে চাই। তাই ট্রেনের টিকিট নিতে এসেছি। ছয়টি টিকিট চেয়ে চারটি পেয়েছি। রাজশাহী যাব ৯ আগস্ট।’ এভাবে অনেকেই অপেক্ষার পরও কাঙ্ক্ষিত টিকিট পায়নি বলে মলিন মুখে দাঁড়িয়ে ছিল।

কমলাপুর রেলস্টেশনের ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলাম জুয়েল বলেন, ‘এবার তদবিরে টিকিট মিলছে না। তাই কাউন্টারে এসেই ভিড় করছে লোকজন। চাহিদা বেশি। টিকিট কম। তার পরও আমরা শৃঙ্খলার সঙ্গে টিকিট বিক্রি করতে পারছি।’ বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্র জানায়, এবার ৫০ শতাংশ টিকিট মোবাইল অ্যাপ ও অনলাইনে আর কাউন্টার থেকে ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। আজ ১ আগস্ট বিক্রি করা হবে ১০ আগস্টের টিকিট। ২ আগস্ট বিক্রি করা হবে ১১ আগস্টের টিকিট। গতকালও রাজধানীর কমলাপুর ছাড়াও টিকিট বিক্রি করা হয়েছে বিমানবন্দর, বনানী ও তেজগাঁও রেলস্টেশন ও ফুলবাড়িয়া পুরনো রেল ভবন থেকে। কাউন্টারে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি হয়। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে টিকিট বিক্রি শুরু হয় সকাল ৬টা থেকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা