kalerkantho

কুষ্টিয়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ

সালিসে কয়েক শ লোকের সামনে শোনা হলো বর্ণনা

ফোনে ফোনে ছড়িয়ে দেওয়া হয় সালিসের ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া   

৭ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এক কিশোরীকে ধর্ষণের চার দিন পর গ্রাম্য সালিসে কয়েক শ লোকের সামনে মেয়েটির কাছ থেকে ঘটনার বর্ণনা শোনা হয়েছে। এ সময় তাকে নানা প্রশ্ন করে বিব্রত করা হয়। একটি মহল সালিসের ভিডিও করে এলাকায় মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেয়। এতে লোকলজ্জায় আত্মগোপনে চলে যান ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার মা।

ঘটনাটি ঘটেছে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলায়। পুলিশ আত্মগোপনে থাকা মা ও মেয়েকে খুঁজে বের করে মামলা নিয়েছে।

জানা যায়, গত ২৬ জুন উপজেলা সদরের থানাপাড়ার এক স্কুলছাত্র ওই প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ করে। পরে স্থানীয় লোকজন মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে গত সোমবার বিকেলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইমরান হোসেন ও যুবলীগ নেতা আল আমিনের নেতৃত্বে গ্রাম্য সালিসের আয়োজন করা হয়। সেখানে কয়েক শ লোকের সামনে ধর্ষণের বর্ণনা শোনা হয় মেয়েটির কাছ থেকে। পরে অভিযুক্ত কিশোরকে কয়েকটি চড়-থাপ্পড় দিয়ে ভুক্তভোগীর আপত্তি সত্ত্বেও বৈঠক শেষ করা হয়।

এদিকে সালিসের পরপরই ধর্ষণের বর্ণনা দেওয়ার একটি ভিডিও এলাকার মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। এতে লোকলজ্জায় গাঢাকা দেন ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার মা। পরে ঘটনা জানতে পেরে তাঁদের উদ্ধার করে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার মেয়েটির মা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। পুলিশ মামলার একমাত্র আসামি কিশোরকে গ্রেপ্তার করে সেফ হোমে পাঠিয়েছে। তবে প্রকাশ্যে ধর্ষণ ঘটনার বর্ণনা নেওয়া ও এর ভিডিও ধারণের ঘটনায় কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে পৌর কাউন্সিলর ইমরান হোসেন বলেন, ‘এলাকার কাউন্সিলর হিসেবে আমি সেখানে গিয়েছিলাম। তবে সালিস করেছে মেয়ের ভাই ও অন্যরা।’

মন্তব্য