kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

পরিচয়বিভ্রাট!

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পরিচয়বিভ্রাটের কারণে রাজশাহীর বাঘায় নিখোঁজ গৃহবধূ গোলাপী বেগম মনে করে আরেক মৃত নারীর দাফন সম্পন্ন করা হয়। এর এক দিন পর গতকাল বুধবার উপজেলার আড়ানী রেলস্টেশন থেকে গোলাপী বেগমকে জীবিত উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগে গত মঙ্গলবার ভুট্টাক্ষেত থেকে মুখে পোড়া মবিল মাখানো এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করে গোলাপী বেগম হিসেবে দাফন করা হয়। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর এলাকাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, গত সোমবার উপজেলার চকবাউসা গ্রামের একটি ভুট্টাক্ষেত থেকে এক নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই নারীর মুখে পোড়া মবিল মাখানো থাকায় তাঁর পরিচয় নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি। পরদিন মঙ্গলবার উপজেলার আড়ানী পৌরসভার পাঁচপাড়া গ্রামের বাকপ্রতিবন্ধী মনির হোসেন দাবি করেন, উদ্ধারকৃত লাশটি তাঁর স্ত্রী গোলাপী বেগমের। পরিবারের অন্য সদস্য এবং স্থানীয়রাও একই দাবি করলে ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ লাশটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। ওই দিন সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে লাশটি দাফন করা হয়।

এদিকে গতকাল সকালে আড়ানী স্টেশনে গোলাপী বেগমকে দেখতে পেয়ে বিস্মিত হয়ে যায় স্থানীয়রা। তারা গোলাপী বেগমকে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে শাশুড়ি মরিয়ম বেগম, মামা শাকিব হোসেন, জা সাজেদা বেগম পরিষদে আসেন এবং তাঁকে আসল গোলাপী বেগম হিসেবে নিশ্চিত করেন। পরে পুলিশ গোলাপী বেগমকে থানায় নিয়ে গিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ বিভিন্ন কাগজ পরীক্ষা করে তাঁকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

গোলাপী বেগমের ভাশুর মাজদার রহমান বলেন, ‘গোলাপী বেগম বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে আমি বাদী হয়ে গত ১ জুন বাঘা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করি। মুখে মবিল মাখানোর কারণে লাশ চিনতে পারিনি।’ গোলাপী বেগম বলেন, ‘ঈদের আগের বুধবার আমি হাটে গরু বিক্রি করে ৪২ হাজার টাকা পেয়েছিলাম। সেই টাকা শ্বশুরবাড়ির লোকজন জোর করে নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করছিল।’ তিনি বলেন, ‘আমি বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে পালিয়ে রাজশাহী শহরে আসি। সেখানে এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলাম। আজ (গতকাল) ফিরে আসার সঙ্গে সঙ্গে এলাকার মানুষজন আমাকে বলে যে তুমি তো মরে গেছ। বেঁচে আসলে কিভাবে? পরে বিস্তারিত জানতে পারি।’

বাঘা থানার ওসি মহসিন আলী বলেন, ‘উদ্ধারকৃত লাশটি ভুলভাবে শনাক্ত করেছিল তার আত্মীয়-স্বজনরা। যাকে মৃত ভেবে দাফন করা হয়েছে, আসলে সেই নারী জীবিত।’ ওসি বলেন, ‘লাশটি দাফন করা হলেও আমাদের কাছে আলামত ও ছবি রয়েছে। তা নিয়ে তদন্ত শুরু করা হবে।’

মন্তব্য