kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সংসদ নির্বাচন নিয়ে একটিও অভিযোগ পড়েনি হাইকোর্টে

সময় আর পাঁচ দিন

এম বদি-উজ-জামান   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ বারবার তোলা হচ্ছে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে। সেই অভিযোগের বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও ঘোষণা দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন সময়ে। কিন্তু আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার সময় ফুরিয়ে এলেও এখনো যথাযথ আদালত হাইকোর্টে কোনো আবেদন করা হয়নি। নির্বাচনী অনিয়মের অভিযোগসংক্রান্ত আবেদনের শুনানির জন্য হাইকোর্টের ছয়টি একক বেঞ্চ রয়েছে। দলীয় বা ব্যক্তিগতভাবে কোনো পরাজিত প্রার্থী এখনো আদালতের শরণাপন্ন হননি। যদিও তাঁদের হাতে আছে আর মাত্র পাঁচ দিন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে রাজনৈতিক বক্তব্য দেওয়া হলেও আইনগত পদক্ষেপ নিতে তাদের কোনো আইনজীবীকে এখনো দায়িত্ব দেয়নি। বিএনপিপন্থী একাধিক আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

নির্বাচনের ফল গেজেট আকারে জারি করার ৪৫ দিনের মধ্যে নির্বাচনী অনিয়মের বিষয়ে হাইকোর্টে আবেদন করার সুযোগ আছে আইনে। গত ২ জানুয়ারি গেজেট প্রকাশিত হয়েছে। এরই মধ্যে ৪০ দিন অতিবাহিত হয়েছে।

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবী প্যানেলের সদস্য অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমার জানা মতে এখন পর্যন্ত কোনো আবেদন দাখিল করা হয়নি। তবে আবেদন দাখিলের চিন্তা-ভাবনা চলছে।’ আবেদন দাখিলের সময় ফুরিয়ে যাওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘এটা তেমন কোনো সমস্যা নয়। বিলম্ব মার্জনার আবেদন দিয়ে অভিযোগ দাখিল করতে পারব।’ জয়নুল আবেদীন নিজেও বরিশাল থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে পরাজিত হন।

বিএনপিপন্থী আরেক আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নির্বাচনী অনিয়মের আবেদন দাখিল করার কোনো সিদ্ধান্তের কথা আমার জানা নেই।’ তিনি নিজেও নেত্রকোনা থেকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে পরাজিত হন।

নির্বাচনী অভিযোগ নিয়ে হাইকোর্টে যেতে হলে সংবিধানের ১২৫ (খ) অুনচ্ছেদ ও নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালা-২০০৮-এর ৩৩ নম্বর বিধি অনুযায়ী আবেদন করতে হবে। ওই বিধিতে বলা হয়েছে, ‘গেজেট প্রকাশিত হইবার পরবর্তী পঁয়তাল্লিশ দিনের মধ্যে সংক্ষুব্ধ পক্ষ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে নির্বাচনী দরখাস্ত পেশ করিতে পারিবেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা