kalerkantho

সোমবার । ২০ জানুয়ারি ২০২০। ৬ মাঘ ১৪২৬। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

শরীয়তপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই যুবক নিহত

শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শরীয়তপুরে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে জাহাঙ্গীর আকন ও সোহাগ সরদার নামে দুই যুবক নিহত হয়েছেন। উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের দেওভোগ এলাকায় রবিবার দিবাগত গভীর রাতের এ ঘটনায় নিহতরা আন্তজেলা ডাকাতদলের সক্রিয় সদস্য বলে দাবি করেছে পুলিশ। নিহতদের মরদেহ শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহত জাহাঙ্গীর আকন (৩৮) মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার সূর্যমণি গ্রামের সিকান্দার আকনের ছেলে। রাসেল হাওলাদারের (৩২) বাড়ি একই জেলার রাজৈর থানার চাপাতলী গ্রামে। বাবার নাম আরশেদ আলী ওরফে সাত্তার হাওলাদার।

জানা গেছে, পালং মডেল থানা পুলিশ, জেলা ডিবি পুলিশ ও ঢাকা উত্তর ডিবি পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে ১১ জানুয়ারি আন্তজেলা ডাকাতদলের সরদার ও একাধিক মামলার আসামি জাহাঙ্গীর এবং রাসেলকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে। ডাকাতদলের আরেক সদস্য সোহেল ঘরামিকে ধরতে রবিবার দিবাগত রাতে ওই দুজনকে সঙ্গে নিয়ে শরীয়তপুর সদর উপজেলার দেওভোগ গ্রামের আখেরী মহলের (কবরস্থান) কাছে অভিযানে যায় পুলিশ। রাত পৌনে ৩টায় আখেরী মহলের পাশে ওত পেতে থাকা ডাকাত সদস্যরা পুলিশের ওপর গুলি ও ককটেল ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে শুরু হয় বন্দুকযুদ্ধ। এ সময় গ্রেপ্তারকৃত দুজন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে জাহাঙ্গীর ও রাসেলের গুলিবিদ্ধ দেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ ও স্থানীয়রা। গুলিবিদ্ধ দেহ দুটি উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানায়, বন্দুকযুদ্ধে পালং মডেল থানার কনস্টেবল রাসেল, মামুন ও ডিবির এএসআই সোহাগ সরদার আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শ্যুটারগান, ৯টি ককটেল, আটটি রামদা, দুটি ছুরি, তিনটি চায়নিজ কুড়াল ও গ্রিল কাটার একটি কাঁচি উদ্ধার করা হয়।

পালং মডেল থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, নিহত জাহাঙ্গীর ও রাসেল নড়িয়া, পালং থানাসহ পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোর বিভিন্ন থানায় একাধিক ডাকাতি মামলার আসামি। জাহাঙ্গীর আন্তজেলা ডাকাতদলের চিহ্নিত সর্দার ও রাসেল সক্রিয় সদস্য। তারা বিভিন্ন এলাকায় জনমনে আতঙ্ক ও ত্রাস সৃষ্টি করে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। তিনি জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি শ্যুটারগান, ৯টি ককটেলসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা