kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

ঢাকা-১ আসনের নির্বাচন নিয়ে দুই শিল্পপতি

‘ভাগ্যক্রমে আমরা একসঙ্গে যুদ্ধ করব’

অমিতাভ অপু, দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা)   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঢাকা-১ (দোহার-নবাবগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন বেক্সিমকো গ্রুপের কর্ণধার সালমান এফ রহমান। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন যমুনা গ্রুপের কর্ণধার নুরুল ইসলাম বাবুলের স্ত্রী সালমা ইসলাম। গতকাল রবিবার মনোনয়নপত্র বাছাইকালে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন শিল্পপতি সালমান ও বাবুল। এ সময় তাঁরা পাশাপাশি দাঁড়িয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন। প্রতিশ্রুতি দেন নির্বাচনে সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার।

আলাপচারিতায় নুরুল ইসলাম বাবুল বলেন, ‘আমরা দুজনই বড় শিল্প গ্রুপের মালিক। আমরা নির্বাচন করতাছি একই জায়গার সন্তান হিসেবে। আমার মিসেস বিগত ১০ বছর এলাকায় অনেক উন্নয়ন করছে। সালমান ভাইও এলাকায় সেবামূলক কাজ করছে। সুতরাং এইবার ভাগ্যক্রমে আমরা একসঙ্গে যুদ্ধ করব। পাবলিকের কাছে যাব, জনগণ যাকে ভোট দেয়, আমরা খুশি হইয়া আনন্দের সঙ্গে একসেপ্ট করব। আমরা দুজন মিলেঝিলে দোহার-নবাবগঞ্জকে মডেল টাউন উপহার দেব।’

এ সময় পাশ থেকে সালমান এফ রহমান ‘ইনশাআল্লাহ’ বলে নুরুল ইসলাম বাবুলের বক্তব্যের প্রতি সমর্থন জানান। এরপর শিল্পপতি বাবুল বলে ওঠেন, ‘আমাদের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব নেই।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নুরুল ইসলাম বাবুল বলেন, ‘সম্মানিত প্রাইম মিনিস্টার যাঁকে মনোনয়ন দিয়েছেন, আমরা তাঁকে আনন্দের সঙ্গে গ্রহণ করেছি। আমরা সেই কারণে লাঙ্গলে বা অন্য কোথাও না যাইয়া স্বতন্ত্রতে দাঁড়াইছি। আমাদের কোনো মার্কা নাই, ১০ তারিখে মার্কা পাব।’

এ সময় গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে সালমান এফ রহমান বলেন, ‘আমিও একটা কথা বলতে চাই। বাবুল ভাইয়ের সঙ্গে আমার অনেক পুরনো সম্পর্ক। উনিও বড় শিল্পপতি। উনি যে কথাটা বলেছেন, তাতে ওনার সঙ্গে আমি একমত। ইলেকশন আছে, নির্বাচন হবে, আমরা সবাই যাব ভোটারের কাছে। ভোট যে পাবে সে নির্বাচিত হবে। কিন্তু নির্বাচনের সময় বা পরেও আমাদের আগে যেমন সম্পর্ক ছিল, সেই সম্পর্কটাই আমাদের মধ্যে থাকবে।’

এ সময় নুরুল ইসলাম বাবুল বলে ওঠেন, ‘ভাইয়ে যেইটা বলছে আমার সেই একই বক্তব্য। আমরা দুজনই শিল্পপতি, দুইজনেরই টাকা-পয়সা, সম্মানের দিকে কমতি নাই। আমরা এলাকার জনগণের জন্য কাজ করতে চাই। আল্লায় যেহেতু আমাদের সুযোগ দিয়েছে, তাই আমরা এলাকার জনগণের কিছু ভাগ্য উন্নয়ন করতে চাই। খেলাধুলার মধ্যে দুজনই ফার্স্ট হতে হবে তা নয়, কিন্তু দুইটা টিম খেললে একজন ফার্স্ট হয়, আরেকজন সেকেন্ড হয়। আমাদের নির্বাচনও তাই, জনগণ যাকে ভোট দেবে আমি তা মেনে নেব।’

এক প্রশ্নের জবাবে শিল্পপতি বাবুল আরো বলেন, ‘আমার ওপরও পিএমের (প্রধানমন্ত্রী) ছায়া অবশ্যই আছে। উনি তো আমাকে বলে নাই, তুমি নির্বাচন কোরো না, একবারও বলে নাই। ভাইকে (সালমান এফ রহমান) জিজ্ঞাসা করে দেখেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমি প্রার্থী দিলাম, তার পরও তুমি যদি করতে চাও তাহলে স্বতন্ত্র কোরো। জনগণ যদি ভোট দেয়, তাহলে দুজনই আমার।’ এ সময় ফের ‘ইনশাআল্লাহ’ বলে বাবুলের বক্তব্যে সমর্থন করেন সালমান এফ রহমান। শেষে তাঁরা হাসিমুখে কোলাকুলি করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা