kalerkantho

নদীসংক্রান্ত জাতীয় টাস্কফোর্সের সভায় সিদ্ধান্ত

গাজীপুর মহানগর ও নরসিংদীতে আর শিল্প-কারখানা নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গাজীপুর মহানগর ও নরসিংদীতে আর শিল্প-কারখানা নয়

গাজীপুর মহানগর ও নরসিংদীতে নতুন করে আর শিল্প-কলকারখানা গড়ার অনুমতি দেওয়া যাবে না। নদী তীর দখল ও দূষণের হাত থেকে রক্ষায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে নদীসংক্রান্ত জাতীয় টাস্কফোর্স। গতকাল বৃহস্পতিবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীসহ ঢাকার চারপাশে নদীগুলোর দূষণ রোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধিসংক্রান্ত ‘টাস্কফোর্স’-এর সভায় এ তথ্য জানানো হয়। নৌপরিবহন মন্ত্রী ও টাস্কফোর্সের সভাপতি শাজাহান খান বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

সভায় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. শাহাদৎ হোসেনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় নদীর সীমানা জটিলতা নিরসনকল্পে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যানকে আহ্বায়ক করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি আগামী তিন মাসের মধ্যে রিপোর্ট পেশ করবে।

সভায় আরো সিদ্ধান্ত হয় ঢালু করে নদী তীর বা খালপার বাঁধাই করা যাবে না। খাড়া (সোজাসুজি) করে তীর বাঁধাই করতে হবে, যাতে সেগুলো দখল হতে না পারে। প্রয়োজনে ওয়াকওয়ের সঙ্গে ড্রাইভওয়ে নির্মাণ করতে হবে। 

সভায় জানানো হয়, ঢাকার চারপাশে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালু নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং উচ্ছেদকৃত জায়গা যাতে আবার দখল হয়ে না যায় সে জন্য ওই নদীগুলোর উভয় পাশে ২২০ কিলোমিটার ‘ওয়াকওয়ে’ নির্মাণ করা হবে। এরই মধ্যে ২০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে নির্মিত হয়েছে। আগামী ৫ অক্টোবর আশুলিয়াতে ৫০ কিলোমিটার ওয়াকওয়ের নির্মাণকাজ শুরু হবে। বাকি ১৫০ কিলোমিটার ‘ওয়াকওয়ে’ নির্মাণকাজের প্রকল্প গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে। নদী তীরে বনায়ন ও সুন্দর পরিবেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে ঢাকার শ্যামপুর ও নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে দুটি ইকোপার্ক নির্মাণ করা হয়েছে। আশুলিয়া, সিন্নিরটেক ও টঙ্গীতে আরো তিনটি ইকোপার্ক নির্মাণ করা হবে।

সভায় আরো জানানো হয়, নদী তীরের সীমানা চিহ্নিত করার লক্ষ্যে ৯ হাজার ৫৭৭টি সীমানা পিলার স্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে তিন হাজার ৮৫৬টি পিলার নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। নতুন করে আরো ১০ হাজার ৪০০ সীমানা পিলার স্থাপন করা হবে। নতুন সীমানা পিলারগুলো বড় ও দৃশ্যমান করে নির্মাণ করা হবে। বিআইডাব্লিউটিএ নতুন করে ১৯টি আরসিসি জেটি নির্মাণ করবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা