kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

বাঁচতে চায় শিশু হোসেন মিজি

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাঁচতে চায় শিশু হোসেন মিজি

১০ বছরের শিশু হোসেন মিজি। একসময় বেশ প্রাণোচ্ছল এবং হাসিখুশি ছিল সে। বিদ্যালয়েও যেত। পড়েছে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত। কিন্তু হোসেন মিজির দেহের বেশ কয়েকটি স্থানে টিউমারের অস্তিত্ব ধরা পড়ায় গত দুই বছর ধরে তার পড়াশোনা বন্ধ। দরিদ্র বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন মিজি সবকিছু বিক্রি করে ছেলের চিকিৎসা ব্যয় মিটিয়েছেন। কিছুটা সুস্থ হলেও এখন হোসেন মিজির দেহে প্রতি মাসে দুইবার কেমোথেরাপি দিতে হচ্ছে। এ জন্য আর্থিক সংগতি নেই অটোরিকশাচালক জাহাঙ্গীর হোসেন মিজির। ফলে শিশুটির জীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। জাহাঙ্গীর হোসেন মিজি চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ পৌরসভার কেরোয়া গ্রামের বাসিন্দা।

হোসেন মিজির চিকিৎসক ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের হেমাটোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মাফরুহা আক্তার জানান, আগামী দেড় বছর পর্যন্ত কেমোথেরাপি দিতে হবে শিশুটিকে। তাহলে পূর্ণ সুস্থ হয়ে ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে।

হোসেন মিজির বাবা জানান, ছেলের চিকিৎসা করাতে গিয়ে এখন নিঃস্ব তিনি। ভাড়ায় অটোরিকশা চালিয়ে এখন সংসার চালাতেই কষ্ট হচ্ছে তাঁর। তাই সন্তানের জীবন রক্ষায় সমাজের বিত্তবান ও সরকারের কাছে সাহায্য চেয়েছেন। শিশুটির মা হোসনে আরা রূপার ব্যক্তিগত বিকাশ (০১৭১৯৮৬৭৭৮৮) নম্বরে যে কেউ অর্থ সাহায্য পাঠাতে পারেন।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা