kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৯ সফর ১৪৪৪

ফুটবলে মাতোয়ারা চুয়াডাঙ্গা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

২১ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফুটবলে মাতোয়ারা চুয়াডাঙ্গা

ফুটবল খেলা নিয়ে মেতে উঠেছে চুয়াডাঙ্গার মানুষ। গ্রাম-গঞ্জ থেকে মানুষ চুয়াডাঙ্গা স্টেডিয়ামে ছুটে আসছে ফুটবল খেলা দেখতে। উপচে পড়া ভিড়ের কারণে পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আয়োজকদের। এ জন্য আগামী ২২ ও ২৩ অক্টোবর সেমিফাইনাল এবং ২৭ অক্টোবর ফাইনাল খেলা ডিশ কেবলের মাধ্যমে ঘরে বসে টেলিভিশনে দেখার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

খেলাগুলো শহরের বড় তিনটি মাঠে বড় পর্দায়ও (জায়ান্ট স্ক্রিন) দেখার ব্যবস্থা করেছেন আয়োজকরা।

গত ৬ অক্টোবর থেকে চুয়াডাঙ্গা স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে জেলা প্রশাসক ফুটবল টুর্নামেন্ট। টুর্নামেন্টে ১৬টি জেলা দল অংশ নিয়েছে। দলগুলো হলো চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা, যশোর, ঝিনাইদহ, জয়পুরহাট, খুলনা, নাটোর, নওগাঁ, মেহেরপুর, টাঙ্গাইল, রাজশাহী, নড়াইল, কুষ্টিয়া, সিরাজগঞ্জ, ফরিদপুর ও সাতক্ষীরা।

খেলা আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য করার জন্য জাতীয় পর্যায়ের ও বিদেশি খেলোয়াড় নেওয়ার ব্যাপারে কোনো বিধি-নিষেধ নেই। এ জন্য প্রায় সব দলই নিজ জেলার জাতীয় পর্যায়ের খেলোয়াড় ও বিদেশি খেলোয়াড় নিয়ে আসে। ফলে মাঠে দর্শকদের ভিড় বাড়তে থাকে। ১২ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার চুয়াডাঙ্গা স্টেডিয়াম প্রায় প্রতিদিনই দর্শকে ভরে ওঠে।

গত ১৬ অক্টোবর ছিল চুয়াডাঙ্গা ও টাঙ্গাইল জেলা দলের মধ্যে প্রথম কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা। ওই দিন স্টেডিয়ামে ধারণক্ষমতার প্রায় দ্বিগুণ দর্শক আসে খেলা দেখতে। স্টেডিয়ামে জায়গা না হওয়ায় আয়োজকরা স্টেডিয়ামের প্রধান গেট খুলে দেন। স্টেডিয়াম গ্যালারি ছাড়াও দর্শকরা মাঠে ঢুকে খেলা দেখে। অনেকে খেলা দেখতে না পেয়ে ফিরে যায়।

২২ অক্টোবর চুয়াডাঙ্গা জেলা দল প্রথম সেমিফাইনালে ঝিনাইদহ জেলা দলের মোকাবেলা করবে। এদিনও বিপুলসংখ্যক দর্শক সমাগম হবে। এরই মধ্যে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন এ খেলার আয়োজক। জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে চুয়াডাঙ্গার মানুষ ফুটবলপ্রিয়। সামনে দুটি সেমিফাইনাল ও ফাইনাল খেলা। খেলাগুলো যাতে দর্শকরা উপভোগ করতে পারে সে জন্য বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ব্যবস্থার কারণে পরিস্থিতিও নিয়ন্ত্রণে থাকবে। খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাবে। ’



সাতদিনের সেরা